,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

জেলা পরিষদ নির্বাচন জনগণের নির্বাচন ছিল না

লাইক এবং শেয়ার করুন

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ বলেছেন, সদ্য সমাপ্ত জেলা পরিষদ নির্বাচন জনগণের নির্বাচন ছিলো না। তবে আগামি জাতীয় নির্বাচন এই সরকারের অধীনেই হবে। সেখানে ৩০০ আসনেই জাতীয় পার্টির প্রার্থী দেয়ার টার্গেট রয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর গুলশানে ইমানুয়েল কনেভেনশন সেন্টারে ১ জানুয়ারি জাপার ৩১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মহাসমাবেশকে সামনে রেখে ‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

এইচ এম এরশাদ বলেন, জেলা পরিষদ নির্বাচন মৌলিক কোনো নির্বাচন ছিলো না। সব ভোটার ছিলো সরকারি দলের। জাতীয় পার্টি এই নির্বাচনে অংশ নেওয়া সমীচীন মনে করেনি। এরপরেও জাতীয় পার্টির দু’-একজন প্রার্থী জয়লাভ করেছেন। আগামি জাতীয় সংসদ নির্বাচন সম্পর্কে তিনি বলেন, আইন অনুযায়ী বর্তমান সরকারের অধীনেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তবে ওই নির্বাচন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মতো সুষ্ঠু হবে।

এইচ এম এরশাদ বলেন, বিএনপি সাংগঠনিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়েছে। আগামি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি একক না জোট করে নির্বাচন করবে তা এখনও সে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। তবে আগামিতে ৩০০ আসনেই জাতীয় পার্টি এককভাবে নির্বাচনে অংশ নিতে পারে। প্রার্থী সংগ্রহসহ নির্বাচনী প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।

এরশাদ বলেন, বিএনপি নির্বাচনে আসবে কি না, আমরা জানি না। তবে বাধ্য হয়ে তাদের নির্বাচনে আসতে হবে। বিএনপির সাংগঠনিক শক্তি অনেক দুর্বল হয়ে গেছে। আর আমরা যেকোনো সময়ের চেয়ে সুসংগঠিত, দলও শক্তিশালী। এ কারণে আগামি নির্বাচনে বিএনপির চেয়ে এগিয়ে থাকবে জাপা।
১ জানুয়ারির মহসমাবেশে জাতীয় পার্টির আসল শক্তি প্রমাণ হবে। আমাদের কেউ দমিয়ে রাখতে পারবে না। আমরা এবার ক্ষমতায় যাবই।

সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন পার্টির কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের, মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য সাহিদুর রহমান টেপা, এস এম ফয়সল চিশতী, সুনীল শুভরায়, মেজর খালেদ আক্তার, জহিরুল ইসলাম জহির, আরিফ খান, অনন্যা হোসেন মৌসুমী, মিজানুর রহমান মিরু প্রমুখ।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ