,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

এসপি বাবুল আক্তার কি প্রশাসন, ব্যবসিক, রাজনীতিক সকলের নিকট বিষাক্ত অক্সিজেন ?

লাইক এবং শেয়ার করুন

রুদ্র আমিন #  ব্যবসায়, রাজনীতিক, সুবিধাভোগী মহল এবং পরিশেষে সরকার। এদের সবার জন্যেই যেন এসপি বাবুল আক্তার বিষাক্ত অক্সিজেন হয়ে গেছে। বাবুল আক্তারের জন্য মনে হচ্ছে তারা শ্বাস-প্রশ্বাস নিতেই পারছেন না। স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যা মামলায় বাবুল আক্তারের দু’ সোর্সকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বেশ ভালো করেছেন পুলিশ কর্মকতারা। অপরাধীদের আটক করেছেন।

কিন্তু প্রশ্নের ভেতরে যে প্রশ্নের জন্ম নেয় বা নিতে পারে সেটা কি কেউ বুঝে ? যারা বুঝে তারা সব জানে, আর যারা বুঝেও না বুঝার ভান ধরে তারা সবার চেয়ে বেশি বুঝেন, কারণ তারাই পরিকল্পনাকারী।

একটু ভেবে দেখুন তো, বাবুল আক্তার কী এতোই বোকা যে নিজের সোর্স দিয়ে নিজের স্ত্রীকে খুন করতে যাবেন? আরও ভেবে দেখুন প্রশাসন কি করছে। বাবুল আক্তার খুন করলে তাকে গ্রেপ্তার না করে, বিচার না করে শুধু পুলিশ থেকে চলে যেতে বলা হচ্ছে কেন? খুনী হলে তিনি কি শাস্তি পাবেন না, আর কেন-ই-বা পাবেন না?

আগে শুনেছি কাকের মাংস কাক খায় না। কিন্তু এখন দেখি তার উল্টো ঘটনা। অনেক ঘটনাতে দেখা গেছে নিজ বাহিনীর কেউ অপরাধী হলে নিজেরা নিজেদের লুকানোর চেষ্টা করে কিন্তু এসপি বাবুল আক্তারের এই ঘটনায় পুলিশ কেন মিডিয়াকে ব্যবহার করে তারা তদন্ত, তথ্য প্রমান, আইন আদালতের আগেই তার সেরা কর্মকর্তাকে দোষী বানাচ্ছে?

আসলে বড় প্রশ্ন মাথাটাকে নষ্ট করে দিচ্ছে আসলে বাবুল আক্তার পুলিশে না থাকলে কাদের কাদের অনেক বেশি লাভ হয়?

এদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেই যাচ্ছেন বলেই যাচ্ছেন ঠোঁটের ফাকে জমাট বাঁধা মাতাল কথা। তিনি বললেন, পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তার পুলিশের নজরদারিতে নেই। তিনি আরও বলেন, এসপি বাবুল আক্তার নজরদারিতে আছেন আমরা কখনো বলিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কথা শুনে বলতেই হয় বাবুল আক্তার কি ছুটি ভোগ করতেছেন বর্তমানে ? এটার জবাব দিন মাননীয় মন্ত্রী। যদি তিনি ছুটি ভোগ না করে থাকেন তবে কীভাবে অফিসে যাচ্ছেন না, কোনো আইনের আওতায় পড়ে জানাবেন কি ? এটা কি ছেলে খেলা নাকি মামার বাড়ির আবদার, যে মন চাইলে অফিস করবো না হয় করবো না।

বাবুল আক্তারের শ্বশুর মোশারফ হোসেনের মাধ্যমে সোমবার রাতে জানা যায়, ‘বাবুল বাড়িতেই আছে। বাচ্চাদের সময় দিচ্ছে। তাদের খাওয়ানো থেকে শুরু করে সব কাজই করছে সে।’ অফিস করছেন কি না জানতে চাইলে মোশারফ হোসেন বলেন, ‘না, সে রোববার ও সোমবার অফিস যায়নি। তাহলে এই দুদিন কি তার ছুটি, আর ছুটি কি শুক্রবার পাশ হয়েছে ? যেদিন সে চট্টগ্রামে ছিলেন?


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ