,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

‘অবস্থার’ পরিবর্তন ঘটলেই ফেইসবুকসহ অন্যান্য যোগাযোগ মাধ্যমগুলো খুলে দেয়া হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

লাইক এবং শেয়ার করুন

‘অবস্থার’ পরিবর্তন ঘটলেই ফেইসবুকসহ ইন্টারনেটে যোগাযোগের মাধ্যমগুলো খুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। ফেইসবুক, মেসেঞ্জার, ভাইবার ও হোয়াটসঅ্যাপ সরকার বন্ধ করে দেওয়ার পরদিন বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি একথা জানান। তবে কী হলে ‘অবস্থা’ বদল বোঝাবে, তা স্পষ্ট হয়নি আসাদুজ্জামান কামালের কথায়। যুদ্ধাপরাধী সাবেক দুই মন্ত্রী সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মো. মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ডের রায় রিভিউর আবেদন খারিজের পর যোগাযোগ মাধ্যমগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়। তখন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেছিলেন, দেশ ও জাতির ‘নিরাপত্তার স্বার্থে’ এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও বলেন, “নিরাপত্তার কারণে সাময়িক এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ অবস্থার পরিবর্তন হলেই এগুলো উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে।”
এই পদক্ষেপের পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে বিশ্বের নানা দেশে একই ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার নজিরও তুলে ধরেন তিনি। “পৃথিবীর সব দেশেই এ ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়ে থাকে। আমাদের এখানে তার ব্যতিক্রম নয়। ইন্টারনেটে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় ফেইসবুক।

নাশকতা ঠেকাতে বন্ধ: তথ্যমন্ত্রী

নাশকতা ঠেকাতে ফেইসবুক, মেসেঞ্জার, ভাইবার ও হোয়াটসঅ্যাপ বন্ধ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। বৃহস্পতিবার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “এখন চোরাগোপ্তা হামলা ঠেকানো খুব কঠিন ব্যাপার। ফেইসবুক, মেসেঞ্জার, ভাইবার ও হোয়াটসঅ্যাপ উসকানিমূলক বক্তব্য, হত্যার হুমকি ও নাশকতায় ব্যবহৃত হচ্ছে বলে এগুলো সাময়িকভাবে বন্ধ করা হয়েছে।” জামায়াতে ইসলামীকে ‘জঙ্গি দানবের দল’ আখ্যায়িত করে জাসদ সভাপতি ইনু বলেন, “জনগণ জঙ্গি দানবের ডাকা হরতাল প্রত্যাখ্যান করেছে। মানবজাতিকে রক্ষা করার জন্য তাদের নির্মূল করতে হবে।”

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদের দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, “যারা এই দানবদের রাজনৈতিতে জায়গা করে দিতে চান, তাদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।” ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড-২০১৫ প্রদান উপলক্ষে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে সেরা হিসেবে নির্বাচিত ২৬ জন রিপোর্টারকে সনদ, ক্রেস্ট ও ৫০ হাজার টাকার চেক তুলে দেন তথ্যমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে ডিআরইউ সভাপতি এই পুরস্কারের জন্য তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে প্রতি বছর ১৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়ার দাবি জানালে তা বিবেচনার আশ্বাস দেন মন্ত্রী। আগামী বছর তথ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের ‘বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড’ দেওয়া শুরু করা হবে বলেও জানান তিনি।  ডিআরইউ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশার সভাপতিত্বে সাবেক সভাপতি ও জুরি বোর্ড চেয়ারম্যান শাজাহান সরদার, সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদ, সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস হোসাইনসহ ডিআরইউর কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ