,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

স্যামি ঝড়ে দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারে রাজশাহী

লাইক এবং শেয়ার করুন

বিপিএলের এলিমিনেটরি ম্যাচে অধিনায়ক ড্যারেন স্যামির ঝাড়ো ফিফটিতে চিটাগং ভাইকিংসকে ৩ উইকেটে হারিয়ে দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারে উঠেছে রাজশাহী কিংস। চিটাগংয়ের দেয়া ১৪২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৮.৩ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় রাজশাহী।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি রাজশাহী কিংসের। দলীয় ৬ রানের মুমিনুল হক ও ৮ রানের তরুণ আফিফ হোসেনকে হারিয়ে চাপে পড়ে রাজশাহী। এরপর সাব্বির রহমান ও সোহান তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৩১ রানের জুটি গড়েন। কিন্তু দলীয় ৩৯ রানের মাথায় সাব্বির ফিরে গেলে দ্রুতই ফিরে যান সোহান, সামিট প্যাটেল ও ফ্রাঙ্কলিন। ফলে ৫৭ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে রাজশাহী কিংস।

সপ্তম উইকেট জুটিতে মিরাজের সঙ্গে ৩৭ রানের জুটি গড়েন রাজশাহীকে ম্যাচে রাখেন অধিনায়ক স্যামি। দলীয় ৯৪ রানের মাথায় মিরাজ রান আউট হয়ে ফিরলে অস্টম উইকেট জুটিতে ফরহাদ রেজার সঙ্গে স্যামির ৪৯ রানের জুটির সুবাদে ৯ বল হাতে রেখেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় রাজশাহী কিংস। ২৭ বলে ৫৫ রানে অপরাজিত থাকেন স্যামি। ২টি ছক্কা ও ৭টি চারের সাহায্রে এরান করেন স্যামি। ১১ বলে ১৭ রান করে অপরাজিত থাকেন ফরহাদ রেজা। চিটাগং ভাইকিংসের হয়ে শুভাষিস রায় ও সাকলাইন সজীব ২টি করে উইকেট নেন। এছাড়া আব্দুর রাজ্জাক ও মোহাম্মদ নবি ১টি করে উইকেট নেন।

টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি চিটাগং ভাইকিংসের। দলীয় ৮ রানের মাথায় ওপেনার ডেয়াইন স্মিথকে হারায় তামিম ইকবালের দল। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ক্রিস গেইলের সঙ্গে ৭৪ রানের জুটি গড়ে শুরুর ধাক্কা সামাল দেন তামিম। দলীয় ৮২ রানের মাথায় গেইল ৪৪ রান করে ফিরে যান। ৩০ বলে ৫টি ছক্কা ও ২টি চারের সাহায্যে এ রান করেন তিনি।

গেইল আউট হওয়ার পর তৃতীয় উইকেট জুটিতে শোয়েব মালিককে নিয়ে রানের চাকা সচল রাখছিলেন তামিম। কিন্তু দলীয় ১১২ রানে মালিক (১৪) ফিরে গেলে তামিম ইকবালও দলীয় ১১৭ রানের মাথায় ফিরে যান। ফলে চাপে পড়ে চিটাগং ভাইকিংস। আউট হওয়ার আগে ৪৬ বলে ৫১ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলেন তামিম। ৬টি চারের সাহায্যে এ রান করেন তিনি। এরপর এনামুল হক বিজয়ের ১১ ও জহিরুল ইসলামের অপরাজিত ১১ রানের সুবাদে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৪২ রান করতে সমর্থ হয় চিটাগং ভাইকিংস। রাজশাহীর বোলারদের হয়ে কেসরিক উইলিয়ামস একাই নেন ৪ উইকেট। এছাড়া ফরহাদ রেজা ২টি ও জেমস ফ্রাঙ্কলিন নেন ১টি উইকেট।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ