,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

মিরাজ-সাকিব জাদুতে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয়

লাইক এবং শেয়ার করুন

এ এক ঐতিহাসিক জয় বাংলাদেশ। স্বপ্ন পূরণের নায়ক উদীয়মান স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ আর তার সাথে বিশ্ব সেরা অল রাউন্ডার সাকিব আল হাসান। প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও মিরাজ তাণ্ডবে দিশেহারা ইংল্যান্ড। ভাবার কোনো সময় নেই একদিকে মিরাজ অন্য দিকে সাকিব আল হাসান। এ যেন যথারীতি বৃটিশদের উপর বাংলাদেশের ধ্বংসযজ্ঞ। বাংলাদেশের দেওয়া ২৭৩ রানের লক্ষ্যে ইংল্যান্ড অলআউট হয়েছে ১৬৪ রানে। মাত্র ৬৪ রানে ইংল্যান্ডের শেষ ৯ উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাদেশ জিতেছে ১০৮ রানে।

২৭৩ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ইংল্যান্ডকে ভালো সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার অ্যালিস্টার কুক ও বেন ডাকেট। ডাকেট তুলে নেন ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে চার মেরে তিনি ফিফটি স্পর্শ করেন ৬১ বলে। পরের বলে মারেন আরেকটি চার, তাতে শতরান পূর্ণ হয় ইংল্যান্ডের। সফরকারীরা চা বিরতিতে যায় ২৩ ওভারে বিনা উইকেটে ১০০ রানে।

তবে চা বিরতি থেকে ফিরেই ইংলিশ শিবিরে জোড়া আঘাত হানে বাংলাদেশ। বিরতির পর প্রথম বলেই বাংলাদেশকে ব্রেক থ্রু এনে দেন মিরাজ। তরুণ অফস্পিনারের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন ফিফটি করা বেন ডাকেট (৬৪ বলে ৫৬)। পরের ওভারে সাকিব আল হাসানও প্রথম বলেই ফিরিয়ে দেন প্রথম ইনিংসে ফিফটি করা জো রুটকে। ১ রান করা রুট হয়েছেন এলবিডব্লিউ।

মিরাজের পরের ওভারে ফিরতে পারতেন কুকও। সুইপ করতে গিয়ে বল আঘাত হেনেছিল তার প্যাডে। বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের জোরালো আবেদনে আম্পারার কুমার ধর্মসেনা আঙুলও তুলেছিলেন। ইংলিশ অধিনায়ক নেন রিভিউ। রিপ্লেতে দেখা যায়, বল স্টাম্প মিস করেছে! বেঁচে যান কুক। তার রান তখন ৪৪।

অবশ্য খানিক বাদেই জোড়া আঘাত হানেন মিরাজ। একই ওভারে তিনি ফিরিয়ে দেন গ্যারি ব্যালান্স ও মঈন আলীকে। মিরাজের দ্বিতীয় বলে শট খেলতে গিয়ে মিডঅফে তামিম ইকবালের ক্যাচে পরিণত হন ব্যালান্স (১৪ বলে ৫)। শেষ বলে এলবিডব্লিউ মঈন। রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি তিনি, ডাক।

নিজের পরের ওভারে কুককেও ফিরিয়ে দেন মিরাজ। এবার ক্যাচ। সিলি পয়েন্টে দারুণ ক্যাচ নেন মুমিনুল হক। ইংলিশ অধিনায়ক করেন ৫৯ রান। বিনা উইকেটে ১০০ থেকে ইংল্যান্ডের স্কোর তখন ৫ উইকেটে ১২৭!

এর আগে বাংলাদেশ তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে অলআউট হয় ২৯৬ রানে। ফলে ইংল্যান্ডের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ২৭৩ রানের। এশিয়ায় এত রান তাড়া করে কখনোই জেতেনি ইংল্যান্ড। সর্বোচ্চ ২০৯ রান তাড়া করে জিতেছিল ২০১০ সালে এই মিরপুরে বাংলাদেশের বিপক্ষেই। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২০৮ রান তাড়া করে জিতেছিল ১৯৬১ সালে লাহোরে পাকিস্তানের সঙ্গে।

দুই শর বেশি রান তাড়া করে আর একবারই জিতেছে ইংলিশরা, ১৯৭২ সালে দিল্লিতে ভারতের বিপক্ষে জিতেছিল ২০৭ রান তাড়া করে। ঢাকা টেস্টে জিততে হলে তাই রেকর্ড গড়তে হবে ইংলিশদের।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

  England 2nd innings (target: 273 runs) R M B 4s 6s SR
View dismissal AN Cook* c Mominul Haque b Mehedi Hasan Miraz 59 129 117 5 0 50.42
View dismissal BM Duckett b Mehedi Hasan Miraz 56 82 64 7 1 87.50
View dismissal JE Root lbw b Shakib Al Hasan 1 4 2 0 0 50.00
View dismissal GS Ballance c Tamim Iqbal b Mehedi Hasan Miraz 5 26 14 0 0 35.71
View dismissal MM Ali lbw b Mehedi Hasan Miraz 0 3 4 0 0 0.00
View dismissal BA Stokes b Shakib Al Hasan 25 50 36 2 1 69.44
View dismissal JM Bairstow† c Shuvagata Hom b Mehedi Hasan Miraz 3 18 8 0 0 37.50
  CR Woakes not out 9 41 17 0 0 52.94
View dismissal AU Rashid lbw b Shakib Al Hasan 0 3 1 0 0 0.00
View dismissal ZS Ansari c Imrul Kayes b Shakib Al Hasan 0 2 2 0 0 0.00
View dismissal ST Finn lbw b Mehedi Hasan Miraz 0 9 8 0 0 0.00
  Extras (b 4, lb 2) 6          
  Total (all out; 45.3 overs; 189 mins) 164 (3.60 runs per over)
 
  Bowling O M R W Econ 0s 4s 6s
View wickets Mehedi Hasan Miraz 21.3 2 77 6 3.58 85 7 1
View wickets Shakib Al Hasan 13 1 49 4 3.76 46 4 1
  Shuvagata Hom 6 0 25 0 4.16 25 3 0
  Taijul Islam 5 2 7 0 1.40 24 0  

লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ