,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

ওভালেই সমতা ফিরে টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে তিন নাম্বারে পাকিস্তান

লাইক এবং শেয়ার করুন

ইয়াসির-দাপটে সফরকারী পাকিস্তানের কাছে লর্ডস টেস্টটা হারলেও পরের দুই টেস্ট জিতে ২-১ ব্যবধানে সিরিজে এগিয়ে গিয়েছিল ইংল্যান্ড। তারপরও চার ম্যাচের সিরিজটা জেতা হলো না স্বাগতিকদের। চতুর্থ টেস্টে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে কুক বাহিনীকে ১০ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে পাকিস্তান। সেটাও ওভাল টেস্টের একদিন বাকি থাকতেই। 
ইউনিস খানের (২১৮) বীরত্বে লন্ডনের কেনিংটন ওভালে সিরিজের শেষ টেস্টের প্রথম ইনিংসে ২১৪ রানের বড় লিড পেয়েছিল পাকিস্তান। পরে ইয়াসির শাহর (৫ উইকেট) ঘূর্ণিতে ইংলিশদের দ্বিতীয় ইনিংস গুটিয়ে যায় ২৫৩ রানে। ফলে ৪০ রানের জয়ের লক্ষ্য নিয়ে ব্যাট করতে নেমে কোনো উইকেট হারাতে হয়নি পাকিস্তানিদের। যাতে ওভালে লর্ডসের পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে সিরিজ ড্র করেই মাঠ ছাড়ে মিসবাহ বাহিনী।
 
ওভালে পাকিস্তানের জয়ের গল্পটা ছিলো ঠিক এমনই। জয়ের জন্য লক্ষ্য মাত্র ৪০ রান, আর সামান্য এই লক্ষ্য পূরণ করতে কোনো উইকেট খরচ করতে হলো না সফরকারিদের। দুই ওপেনার আজহার আলি (৩০) আর সামি আসলামই (১২) জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন আনন্দচিত্তে। পূর্ণ একটি দিন এবং এ দিনের ২৬ ওভার বাকি থাকতেই বিশাল ব্যবধানে এই জয় তুলে নিলো সফরকারী পাকিস্তান। ফলে চার ম্যাচের এই টেস্ট সিরিজ শেষ হলো ২-২ সমতায়। অথ্যাৎ নিজেদের মাটিতে পাকিস্তানকে বাগে পেয়েও সিরিজে হারাতে পারলো না ইংল্যান্ড। আর পাকিস্তানের জন্য স্বস্তির বিষয় হলো, ইংল্যান্ডের মাটি থেকে টেস্ট সিরিজে পরাজয় নিয়ে দেশে ফিরতে হচ্ছে না মিসবাহদের।
এর আগে প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের করা ৩২৮ রানের জবাবে ইউনিস খানের ডাবল সেঞ্চুরিতে ৫৪২ রান সংগ্রহ করলে ২১৪ রানের লিড পাকিস্তান। এরপরই ঠিক বোঝা যায় যে, ওভালের আধিপত্যটা পাকিস্তানের কাছেই থাকবে। হয়েছেও তাই। ২১৪ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে রোববার ম্যাচের তৃতীয় দিনে লেগ স্পিনার ইয়াসির শাহ’র ঘূর্ণিতে ফের কোণঠাসা হয়ে পড়ে ইংল্যান্ড, অলআউট হয় ২৫৩ রানে। যাতে এক বেয়ারস্টো (৮১) ছাড়া আর কেউই তেমন কিছু করতে পারেননি। তখনই মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে যায় যে, সহজেই জিততে যাচ্ছে পাকিস্তান। জনি ৮১ রানের ইনিংসটা না খেললে হয়তো ইনিংস পরাজয়ই হতো স্বাগতিকদের। তবুও মানরক্ষা, কোনমতে ইনিংস পরাজয় এড়াতে পেরেছে তারা। যদিও ১০ উইকেটের বিশাল পরাজয় এড়াতে পারেনি কুকের দল। 
 
পাক স্পিনার ইয়াসির একাই ৭১ রানে ৫ উইকেট নিয়ে গুড়িয়ে দেন ইংলিশদের অহংকার। এছাড়া ওয়াহাব রিয়াজ ২টি এবং সোহাইল খান ও অভিষিক্ত ইফতিখার আহমেদ ১টি করে উইকেট নেন। কিন্তু উইকেট শূন্য থাকেন পাক পেস সেনসেশন মোহাম্মদ আমির। এতে ইংলিশদের হয়ে এক জনি ছাড়া আর কেউই তেমন কোন ভূমিকা রাখার সুযোগ পাননি। জো রুট ৩৯ এবং মঈন আলী ৩২ রান করেন। এদিকে ম্যাচ সেরা হন পাকিস্তানি লিজেন্ড ইউনিস খান এবং সিরিজ সেরা হন যৌথভাবে মিসবাহ-উল-হক ও ক্রিস ওকস।
 
চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শেষ হলো ২-২ সমতায়। ইংলিশদের মাটিতে এই পারফরম্যান্সের সুবাদে টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে তিন নাম্বারে উঠে এসেছে পাকিস্তান। ২০ ম্যাচ খেলা পাকিস্তানের নামের পাশে জমা পড়েছে ১১১ রেটিং। ইংল্যান্ডের অবস্থান চতুর্থ, তাদের সংগ্রহ ১০৮। তালিকার শীর্ষে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া। স্টিভেন স্মিথের দলের সঞ্চয় ১১৮। ভারত ১১২ রেটিং নিয়ে রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে।

এদিকে, বাংলাদেশ রয়েছে নবম স্থানেই। টাইগারদের পুঁজি ৫৭। সবার শেষে অর্থাৎ দশম স্থানধারী দল জিম্বাবুয়ে। তাদের ঝুলিতে জমা আছে মোটে ৮ রেটিং। নিউজিল্যান্ড (৯৯), দক্ষিণ আফ্রিকা (৯২), শ্রীলঙ্কা (৮৫) ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের (৬৫) অবস্থান যথাক্রমে পঞ্চম, ষষ্ঠ, সপ্তম ও অষ্টম।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ