,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

দিতির প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

লাইক এবং শেয়ার করুন

পারভীন সুলতানা যিনি দিতি নামে বেশি পরিচিত বাংলাদেশি অভিনেত্রী। তিনি ১৯৬৫ সালের ৩১ মার্চ নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁওয়ে জন্মগ্রহণ করেন এবং ২০১৬ সালের ২০ মার্চ মৃত্যুবরণ করেন। তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র উদয়ন চৌধুরী পরিচালিত ‘ডাক দিয়ে যাই’। আজ (২০ শে মার্চ) চলচ্চিত্র ও টিভির নন্দিত অভিনেত্রী পারভীন সুলতানা দিতির প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। এ উপলক্ষে তার পরিবার ও বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি আলাদাভাবে বিশেষ আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছেন।

দিতির মেয়ে লামিয়া চৌধুরী জানান, ভোরে ছোট ভাই দীপ্ত চৌধুরীকে নিয়ে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয় যাবেন। সেখানে মায়ের কবর জিয়ারত করবেন। এ ছাড়াও বাদ জোহর সোনারগাঁ জামে মসজিদে মিলাদ মাহফিল ও দোয়া করা হবে। পাশাপাশি অসহায়, এতিম, গরিব, স্কুল থেকে আসা বাচ্চাদের খাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। তিনি জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী ও তার মা দিতির জন্য সবার কাছে দোয়া চান। এদিকে দিতির বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে এবং তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শিল্পী সমিতির উদ্যোগে মিলাদ মাহফিল ও স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছে।
সমিতির সহসভাপতি ওমর সানী বলেন, আমাদের চলচ্চিত্রে শিল্পী দিতির অবদান কোনো অংশেই কম নয়। শিল্পী ও মানুষ হিসেবে দিতি ছিলেন অনন্য। এ কারণে শিল্পী সমিতি তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে আন্তরিকভাবে শ্রদ্ধা জানানোর চেষ্টা করবে। ১৯৮৪ সালে নতুন মুখের সন্ধানের মাধ্যমে দেশিয় চলচ্চিত্রে দিতির সম্পৃক্ততা ঘটে। তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র উদয়ন চৌধুরী পরিচালিত ‘ডাক দিয়ে যাই’। কিন্তু ছবিটি শেষ পর্যন্ত মুক্তি পায়নি। দিতি অভিনীত মুক্তিপ্রাপ্ত প্রথম চলচ্চিত্র ছিল ‘আমিই ওস্তাদ’। ছবিটি পরিচালনা করেছিলেন আজমল হুদা মিঠু। এরপর দিতি প্রায় দুই শতাধিক ছবিতে কাজ করেছেন। সুভাষ দত্ত পরিচালিত ‘স্বামী স্ত্রী’ ছবিতে দিতি আলমগীরের স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেন। এই ছবিতেই অভিনয় করে দিতি প্রথমবারের মতো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন।
 
সিনেমার পাশাপাশি টিভি নাটকেও অভিনয় করেছেন দিতি। নাটক পরিচালনাও করেছেন। এ ছাড়া রান্নাবিষয়ক অনুষ্ঠানও উপস্থাপনা করেছেন। অভিনয়ের বাইরে মাঝে-মধ্যে গান গাইতেও দেখা গেছে তাকে। প্রকাশিত হয়েছে তার একক গানের অ্যালবামও। বিজ্ঞাপনচিত্রে মডেলও হন তিনি।

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ছিলেন দুই সন্তানের জননী। তার মেয়ে লামিয়া আর ছেলের নাম দীপ্ত। চলচ্চিত্র নায়ক সোহেল চৌধুরীকে ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন তিনি। মারা যাওয়ার পর চলচ্চিত্র নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনকে বিয়ে করেন। সে সংসার টেকেনি । মস্তিষ্কে ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ায় ২০১৫ সালের ২৫ জুলাই থেকে ভারতের চেন্নাইয়ের মাদ্রাজ ইনস্টিটিউট অব অর্থোপেডিকস অ্যান্ড ট্রমাটোলজি (এমআইওটি) হাসপাতালে নেয়া হয়। মাঝে কিছুটা সুস্থ হয়ে দেশে ফিরে আসেন। শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে সেই বছরের নভেম্বরে আবারও একই হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় তাকে। বেশ কিছুদিন চিকিৎসাধীন থাকার পরও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় ৮ জানুয়ারি তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। দেশে ফেরার পরপরই তাকে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের আইসিইউতে থাকাকালীন ২০১৬ সালের ২০ মার্চ বিকেল ৪টা ৫ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ