,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

সন্তানের জন্য নর্দমার পানি পান করলেন মা!

লাইক এবং শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক মাতৃ দিবসে মর্মান্তিক এক ঘটনার সাক্ষী থাকল ভারতের আগ্রা। সন্তানের জন্য পয়সা বাঁচাতে নর্দমার ময়লা পানি পান করলেন মা। মা যে স্রষ্টার সেরা উপহার তা আবারও প্রমাণ করলেন রীতা। ঘটনাটি ঘটেছে আন্তর্জাতিক মা দিবসে ভারতের আগ্রাতে। সন্তানের জন্য পয়সা বাঁচাতে নর্দমার নোংরা পানি পান করলেন তিনি। ভারতের ডিমাপুরের বাসিন্দা রীতা কর্মসংস্থানের জন্য দিন কয়েকদিন আগেই আগ্রায় এসেছিলেন। তার কোলে দুই ছোট্ট সন্তান। কোনো কাজের সন্ধান না পেয়ে পথের ধারেই দিন কাটাতে করতে হয় তাকে। অন্যদিকে, তার এক সন্তান নাগাল্যান্ডের এক অসাধু ব্যবসায়ীর কাছে গচ্ছিত রাখা আছে। সেই সন্তানকে উদ্ধার করে আনতে দরকার মোটা অঙ্কের টাকা। তাই কাজের সন্ধানে ভিটেমাটি ছেড়ে রীতা এসেছেন আগ্রায়। তবে কাজের সন্ধান না পেয়ে রীতা এখন অসহায়। আর এই অবস্থায় খিদে আর তৃষ্ণায় কাতর অসহায় এই মা’কে দেখা যায় নর্দমার নোংরা পানি পান করতে।

গত শনিবার রাতে তাকে শাহ মার্কেট এলাকায় নর্দমা থেকে থেকে পানিপান করতে দেখতে পান স্থানীয় বাসিন্দারা। একা মা নন, তার কোলের মাত্র দেড় বছরের সন্তান অরুণ ও তিন বছরের মেয়ে নন্দিনীকেও সেই পানিই পান করতে দেন রীতা। হৃদয় বিদারক এই দৃশ্য দেখে স্থানীয় এক দোকানি রীতার দিকে পানির পাউচ এগিয়ে দেন। ওই দোকানি জানতে পারেন, রীতার কাছে একটিও পয়সা নেই। গত পাঁচদিন ধরে কোনও ঠিকা কাজেরও সন্ধান পাননি তিনি।

শেষ পর্যন্ত ওই দোকানি ও স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা মানবাধিকার কর্মী নরেশ পরাশরকে খবর দেন। পরে নরেশ বলছেন, গত চারদিন ধরে রীতা ও তার সন্তানরা ফুটপাতে, ডাস্টবিনে ফেলে দেওয়া উচ্ছিষ্ট খেয়ে রয়েছে। ভাষার সমস্যার জন্য কেউ তার কথাও বুঝতে পারছিল না। পুলিশও এগিয়ে আসেনি।

নরেশ আরও জানিয়েছেন, অসুস্থ স্বামীর চিকিৎসার জন্য নাগাল্যান্ডে স্থানীয় মহাজনের কাছে নিজের সাত বছরের সন্তানকে বন্ধক রেখেছিলেন রীতা। কিন্তু তার স্বামী শেষ পর্যন্ত মারা যান। নিজের সন্তানকে ওই মহাজনের কাছ থেকে ফেরত আনতে ব্যর্থ হন রীতা। এক ভাইয়ের সঙ্গে আগ্রাতে কাজের খোঁজে এসেছিলেন তিনি। কিন্তু সেই ব্যক্তিও তাকে ফেলে চলে যায়। পরে দৈনিক ৪০ টাকা করে নাগাল্যান্ডে চা-বাগানে কাজ শুরু করেন তিনি।

এদিকে, রীতা কাছ থেকে গোটা ঘটনা শুনে নরেশ পরাশর নাগাল্যান্ড পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তারাই নিশ্চিত করেন, রীতা ডিমাপুরের বাসিন্দা। ডিমাপুরের অ্যাসিস্ট্যান্ট পুলিশ কমিশনার আকুম লাম জানিয়েছেন, রীতাকে ব্রহ্মপুত্র মেল এ চাপিয়ে সন্তানসহ ডিমাপুরে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, রীতার বন্ধক রাখা সন্তানকেও দ্রুতই ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করা হবে বলেও আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ