AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

মমতাকে কটাক্ষ‌ করে ধর্মীয় সুড়সুড়ি দিয়েই বক্তব্য বিজেপি নেতা অমিত শাহ’র

লাইক এবং শেয়ার করুন

সুকুমার মিত্র, কলকাতা # রাজ্যে ঘুরে গেলেন ভারতীয় জনতা পার্টির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। একের পর এক সভায় রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত সরকার ও ব্যাক্তিগতভাবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ‌ করে উত্তেজনাপ্রবন বক্তব্য রাখেন। মাঝে পঞ্চায়েত নির্বাচন ২০১৮ তা নিয়ে বেশি বাক্য ব্যয় না করে কার্যত ২০১৯-এর লোকসভা ও ২০২২-এর বিধানসভা দখলের ডাক দিলেন। আর এই কারণে তাঁর কর্মসূচির মধ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্বাচনী কেন্দ্র ভবানীপুরকে বেছে নেন অমিত শাহ। সম্প্রতি কয়েকটি এলাকায় সাম্প্রদায়িক উত্তেজনার প্রসঙ্গ তুলে হিন্দুত্ববাদীদের সুড়সুড়ি দিতেও ছাড়েননি বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি।

বিজেপি-র সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের চ্যালেঞ্জের জবাব দিতে আলিপুরদুয়ারের প্রশাসনিক বৈঠকের মঞ্চকেই বেছে নিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সরাসরি বিজেপির দিকে আঙুল তুলে মমতা বললেন, ‘দেশে সমস্ত প্রকল্পে এগিয়ে বাংলা। সব টাকা কেন্দ্রীয় সরকার কেটে নেওয়া সত্ত্বেও আমরা এগিয়ে আছি সমস্ত প্রকল্পে। নজির সৃষ্টি করে পাঁচবার কৃষিতে সেরা হয়েছি আমরাই। তা তো আর ফ্লুকে নয়? এইভাবে কেন্দ্রের সার্টিফিকেটেই অমিত শাহের বক্তব্যের পাল্টা জবাব দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। আলিপুরদুয়ারে নতুন জেলা গঠনের পর এটি তাঁর দ্বিতীয় প্রশাসনিক বৈঠক। সেখানে তিনি খতিয়ে দেখেন তাঁর প্রথম প্রশাসনিক বৈঠকের নির্দেশকে মান্যতা দিয়ে কতখানি কাজ করেছে জেলা প্রশাসন। প্রশাসনিক সভা থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর কেন্দ্র ভবানিপুরে সফররত বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আর কত মিথ্যা বলবেন।

এবার বকবক কম করুন।‘ মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘ঋণ মকুবের জন্য বারবার রাজ্যের জন্য করজোড়ে প্রার্থনা করেছি। কিন্তু কিছুই করেনি কেন্দ্রের সরকার। সেই প্রতিকূলতা সত্ত্বেও রাজ্যে আমরা উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ চালাচ্ছি। এত সহজে মিথ্যা প্রচার করে বাংলার মানুষকে ভুল বোঝানো যাবে না। আমরা যা বলি, তা করি। মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিই না।’ আলিপুরদুয়ারে প্রশাসনিক বৈঠকের পর বৃহস্পতিবার তিনি সরকারি জনসভা করবেন এই আলিপুরদুয়ারেই। পঞ্চায়েত ভোটের আগে একগুচ্ছ প্রকল্পের উদ্বোধনের পাশাপাশি শিলান্যাসও করবেন অনেক প্রকল্পের। এছাড়া সরকারি প্রকল্পের আওতায় পরিষেবা প্রদানও করবেন এই অনুষ্ঠান থেকে। রাজ্যে এসেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। আর এসেই আগামী নির্বাচনে বিজেপির রাজ্য জয়ের ঘোষণা করে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূল কংগ্রেস সরকারকে। এদিন পাল্টা তার জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী বিজেপি ও কেন্দ্রের সরকারকে আক্রমণ করে আরও বলেন, ‘কেউ কেউ কাজ করে না, ভাবে স্যোশাল নেটওয়ার্কে ভাষণ দিয়ে, হাজার হাজার কোটি টাকা ছড়িয়ে মিথ্যা ভাষণ দিলে সব হয়ে যাবে। তবে এটা বাংলা তা মাথায় রাখতে হবে’।

তাঁর দাবি, ‘ আমরা আজ অনেক এগিয়ে গিয়েছি। আর এটা বিজেপি সহ্য করতে পারে না। ওরা হিংসুটে। ওরা কোনও রাজ্যকে টাকাপয়সা দেওয়ার কথা ভাবতেই পারে না। আর এত দেনা শোধ করেও বাংলা এগিয়ে যাচ্ছে। মাথায় রাখবেন এই দেনা আমরা করিনি সিপিএম করেছে। তা যতদিন শোধ না হয় তা লাফিয়ে বাড়ে।’ প্রসঙ্গত, রাজ্যের ঘাড়ে ঋণের বোঝা নিয়ে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই মমতা সরব। বেশ কয়েকবার কেন্দ্রের কাছে ঋণ মকুবের আবেদন জানানো সত্ত্বেও তাতে কর্ণপাত করেনি কংগ্রেস-বিজেপি কোনও সরকারই। এদিন সেই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমার রাজ্যের যা আয় তার সবটাই দেনা শোধ করতে চলে যায়। একটা টাকাও আমাদের কাজে লাগে না। পুরো টাকাটাই কেন্দ্র নিয়ে চলে যায়। আমাদের থেকে ৪০ হাজার কোটি টাকা কেটে বিজেপি বড় বড় ভাষণ দিচ্ছে।’ মমতা বিজেপি নেতা অমিত শাহকে আক্রমণ করে বলেছেন, এরা সব পরিযায়ী পাখি, আসে উড়ে যায়। এছাড়া রাজ্যের উন্নতির নমুনা হিসেবে মমতা বলেন, শিল্পের বিকাশে ভারতের হার ৭ শতাংশ, বাংলার ১০ শতাংশ।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ