,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এবার পর্নো তারকার অভিযোগ

লাইক এবং শেয়ার করুন

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট্ নির্বাচন যতই ঘনিয়ে অসছে, ততই বিতর্ক ধেয়ে আসছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের দিকে। একে একে ১০ নারী যৌন হয়রানির অভিযোগ তোলায় রিপাবলিকানদলীয় এই প্রার্থী ক্লান্ত, ঠিক তখন তার বিরুদ্ধে আবারও যৌন হয়রানির বোমা ফাটালেন আরও এক নারী। জেসিকা ড্রেইক নামে এক হলিউড চলচ্চিত্র অভিনেত্রী প্রকাশ্যে অভিযোগ করেছেন, ট্রাম্প তার সঙ্গে অন্যায়ভাবে যৌন আচরণ করেছেন। প্রায় এক দশক আাগে নেভাদার লেক তাহোয়ে একটি গল্ফ টুর্নামেন্ট চলাকালীন রিপাবলিকান প্রার্থী তাকে জড়িয়ে ধরেন ও চুমু দেন। এমনকি বিশেষ একটি কক্ষে সময় কাটাতে তাকে ১০ হাজার মার্কিন ডলার দেয়ার প্রস্তাব দেন। এ নিয়ে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করলেন ১১ নারী।

মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএনের খবরে বলা হয়, বয়স্ক অভিনেতা ও পরিচালক জেসিকা শনিবার লস অ্যাঞ্জেলেসে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন। তিনি দাবি করেন, ২০০৬ সালে তিনি একবার ট্রাম্পের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন। সেসময় ট্রাম্প তার কাছ থেকে ফোন নাম্বার চেয়েছিল এবং রাতে একটি বিশেষ কক্ষে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল। তবে তিনি অন্যান্য দুই নারীকে সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিলেন। ট্রাম্পের সঙ্গে একাকি সাক্ষাতে অস্বস্তি অনুভব করায় তাদের সঙ্গে নিয়ে যান বলে জানান জেসিকা।

তিনি বলেন, ট্রাম্প আমাদের সবাইকে শক্তভাবে জড়িয়ে ধরে। আমাদের অনুমতি চাওয়া ছাড়াই সে চেপে ধরেন ও প্রত্যেককে চুমু দেন। জেসিকা বলেন, এ অবস্থায় তিনি অস্বস্তি অনুভব করায় ৩০ থেকে ৪০ মিনিট পরে ট্রাম্পকে ছেড়ে চলে যান। পরে ট্রাম্পের এক প্রতিনিধি তার কাছে একটি ফোন দেন। ফোন করে তাকে ট্রাম্পের সঙ্গে একাকি একটি কক্ষে আমন্ত্রণ জনানো হয়। তবে তিনি এতে অস্বীকৃতি জানান। পরে ট্রাম্প নিজেই তাকে সরাসরি ফোন করে ফিরে আসতে বলে। এবারও তিনি অস্বীকৃতি জানান।

জেসিকা বলেন, আমন্ত্রণ নাকচ করে দেয়ার পর ট্রাম্প তাকে জিজ্ঞেস করেন, তুমি কি চাও? কত টাকা চাও? এমনকি রাজি হলে ট্রাম্প ১০ হাজার মার্কিন ডলার এবং ব্যক্তিগত বিমান ব্যবহারের প্রস্তাব দেয়। সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প ও জেসিকার একত্রে উঠানো একটি ছবিও দেখানো হয়েছে।

সম্প্রতি ট্রাম্পের ২০০৫ সালের একটি ভিডিও টেপ ফাঁস হয়। যেখানে তাকে বলতে শোনা যায়, তিনি কীভাবে কিছু নারীকে জড়িয়ে ধরে চুমু খেয়েছেন। এমনকি তাদের শরীরের স্পর্ষকাতর জায়গায় কীভাবে স্পর্ষ করেছেন তাও বলেন। এ ভিডিওতে নারীদের সম্পর্কে অত্যন্ত নোংরা মন্তব্য করেন ট্রাম্প। সর্বশেষ এ ভিডিওটি ফাঁস হওয়ার পর যৌন হয়রানির শিকার হওয়া নারীরা একের পর এক সামনে আসতে থাকেন।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ