,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

‘ট্রাম্প একটা গোঁয়াড়’, দল ছাড়লেন শীর্ষ রিপাবলিকান

লাইক এবং শেয়ার করুন

ডোনাল্ড ট্রাম্পকে মনোনয়ন দেয়া ও তার বিতর্কিত সব মন্তব্যের কারণে রিপাবলিকান দলের মধ্যে বিভক্তি আরও স্পষ্ট হয়ে পড়েছে। জেব বুশের শীর্ষ উপদেষ্টা স্যালি ব্রাডশ তো এবার দলই ত্যাগ করলেন।  তিনি প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প একটা গোঁয়াড়, নারী বিদ্বেষী ও স্বকামী। তিনি নারীদের সম্মান দিতে জানেন না। তাই স্যালি এবার ভোট দেবেন হিলারি ক্লিনটনকে।  বললেন, ফ্লোরিডায় যদি ভোটের ব্যবধান কম হয় তাহলে তিনি হিলারিকেই ভোট দেবেন। এ খবর দিয়েছে অনলাইন সিএনএন।
 
এতে বলা হয়েছে স্যালি কিভাবে তার ভিতরকার সব ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন। বিশেষ করে ট্রাম্পকে মনোনয়ন দেয়া ও ইরাক যুদ্ধে নিহত সেনা হুমায়ুন খানের পিতামাতাকে অবমাননা করে ট্রাম্পের দেয়া বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন এরই মধ্যে রিপাবলিকান দলের শীর্ষ নেতারা। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলেন সিনেটর জন ম্যাককেইন (গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী), প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার পল রায়ান ও সিনেটর মিচ ম্যাককনেল।
 
এ ছাড়া আরও অনেকে রয়েছে। তারা খিজির খান দম্পতিকে অবমাননার জন্য ট্রাম্পের সমালোচনা করলেও তার ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করেন নি। কিন্তু স্যালি প্রকাশ্যে সেই সাহস দেখিয়েছেন। তিনি সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের ভাই জেব বুশের ঘনিষ্ট সহযোগী ছিলেন কয়েক দশক ধরে। এবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মনোনয়ন লড়াইয়ে তিনি ছিলেন জেব বুশের সিনিয়র একজন উপদেষ্টা। কিন্তু ট্রাম্পের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডে তার মতো সিনিয়র একজন রিপাবলিকান দল ত্যাগ করলেন। অন্য কোন দলেও তিনি যোগ দেন নি।
 
তিনি সিএনএনের সাংবাদিক জেমি গ্যাঞ্জেলকে দেয়া ইমেইল সাক্ষাৎকারে বলেন, রিপাবলিকান দল সঙ্কটকালে (ক্রসরোড) রয়েছে। মনোনয়ন দিয়েছে পুরো একজন স্বকামী, নারী বিদ্বেষী ও একজন গোঁয়াড়কে। এখন সময় এসেছে দেশকে রাজনৈদিক দলের উর্ধ্বে উঠে আসতে হবে। ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে পারেন না।
 
উল্লেখ্য, স্যালি ব্রাডশ এর আগে ১৯৮৮ সালে সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ এইচ ডব্লিউ বুশের প্রচারণা দিয়ে তার ক্যারিয়ার শুরু করেন। সর্বশেষ তিনি তারই পুত্র জেব বুশের উপদেষ্টা ছিলেন। তার মতো একজন রিপাবলিকানের দলত্যাগের মধ্য দিয়ে দলের ভিতরে ট্রাম্প বিরোধিতা প্রকট হয়ে উঠেছে। তিনি দলের ভিতর ছিলেন প্রভাবশালী ও সম্মানীত সদস্য।
 
স্যালি ব্রাডশ বলেছেন, এই প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হচ্ছে একটি পরীক্ষা। আমি প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার নীতির ধারা আরও চার বছর দেখতে চাই না। কিন্তু আমি আমার সন্তানদের চোখের দিকে তাকাতে পারি না এবং তাদের বলতে পারি না যে, আমি ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ভোট দেব। তাদেরকে যেভাবে প্রতিবেশী সম্পর্কে ধারণা দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে তার প্রেক্ষিতে আমি আমার সন্তানদের বলতে পারি না যে, তোমার প্রতিবেশীকে সম্পান কর এবং তারপর ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ভোট দাও। আমি এটা করতে পারবো না।
 
উল্লেখ্য, এবার ফিলাডেলফিয়ায় ডেমোক্রেটিক পার্টির জাতীয় সম্মেলনে হাজির হয়েছিলেন ইরাক যুদ্ধে নিহত মুসলিম মার্কিন ক্যাপ্টেন হুমায়ুন খানের পিতা খিজির খান ও মা গাজালা খান। খিজির খান ওই সম্মেলনে তার সন্তানের কথা তুলে ধরে তীব্র সমালোচনা করেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের। তার জবাবে অত্যন্ত কড়া ভাষায় তাদের সমালোচনা করেন ট্রাম্প।
 
তার এমন সমালোচনার জবাবে স্যালি ব্রাডশ বলেছেন, ওই পরিবারটির সম্মান খর্ব করায় আমার বুকের ভিতরটা ভেঙে গেছে। ডোনাল্ড ট্রাম্প একজন নারীকে অসম্মানিত করেছেন, যে নারী এমন এক ছেলের জন্ম দিয়েছেন- যিনি যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে লড়াই করতে গিয়ে নিহত হয়েছেন। তাই স্বতন্ত্র ভোটার হওয়ার জন্য এ ঘটনাই আমাকে উদ্বুদ্ধ করেছে। স্যালি ব্রাডশ বলেন, যে পরিবার তার প্রিয়জনকে এদেশের সেবায় হারিয়েছে, যে পরিবারের সদস্য যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীতে কাজ করে তাদেরকে সম্মান জানানো উচিত রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গির বাইরে গিয়ে। যোদ্ধা ও তার পরিবারগুরো সম্মান পাওয়ার এ অধিকার অর্জন করেছেন।

যিনি প্রেসিডেন্ট হতে চান তাকে এই ধ্যানধারণা বুঝতে হবে ও সম্মান জানাতে হবে। আমি দল থেকে সরে যাওয়ার কথা চিন্তা করছিলাম কয়েক মাস ধরে। আমি ট্রাম্পের ঘৃণামুলক বক্তব্য মানতে পারছিলাম না। তার মধ্যে রক্ষণশীল মূলনীতি ও দর্শনের পুরোপুরি ঘাতটি রয়েছে।  স্যালি ব্রাডশ বলেন, আমি সহজভাবে আমার সিদ্ধান্ত নিই নি। দলকে এই অবস্থায় আনতে আমিও কটোর পরিশ্রম করেছি। কিন্তু ট্রাম্প রিপাবলিকান দলকে নিয়ে গেছেন ভিন্ন এক পথে। এতে প্রচুর রিপাবলিকান শুধু দেখছেন। 

– সংবাদমাধ্যম


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ