,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

তুরস্কে ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থান : এরদোগান

লাইক এবং শেয়ার করুন

তুরস্কে সেনাবাহিনীর একাংশের অভ্যুত্থান ব্যর্থ হয়েছে বলে ঘোষণা দিয়েছে দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপ এরদোগান।এছাড়া তুরস্কের সেনাবাহিনী প্রধানের (ভারপ্রাপ্ত) দায়িত্ব উমিত দানদারকে দেয়া হয়েছে। এদিকে সরকারের পক্ষে রাজপথে অবস্থান নিয়েছে জনতা। পুলিশ অভ্যুত্থান চেষ্টায় জড়িত ৭৫৪ জনকে গ্রেফতার করেছে। শনিবার ভোরে ইস্তাম্বুলে পৌঁছে বিমানবন্দরে এক ভাষণে এরদোগান বলেছেন,পরিস্থিতি সরকারের নিয়ন্ত্রণে আছে।অভ্যুত্থানচেষ্টাকারীরা রাষ্ট্রদ্রোহের অপরাধ করেছে।

রিসেপ তাইপ এরদোগান অবকাশে থাকার মধ্যেই শুক্রবার দেশটির সেনাবাহিনীর একাংশ অভ্যুত্থান ঘটিয়ে ক্ষমতা দখলের দাবি করে। আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়, রাজধানী আঙ্কারা এবং দেশটির বৃহত্তম শহর ইস্তাম্বুলে ট্যাংক নামে। পথে পথে পাহারায় বসে সেনা সদস্যরা। বিভিন্ন ভবনের নিয়ন্ত্রণও নেন তারা।এসময় দেশটির এই দুই বৃহত শহরে প্রচন্ড গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়। বন্ধ করে দেয়া হয় দেশটির বিমান বন্দরসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা।

উপকূলের শহর মারমারাসি থাকা এরদোগান অভ্যুত্থানের এই খবর পেয়েই জনগণকে তা প্রতিরোধের আহ্বান জানান। এরপর তড়িঘড়ি করে তিনি ইস্তাম্বুল পৌঁছে এক ভাষণে বলেন, সেনাবাহিনীর ‘ক্ষুদ্র’ একটি দল অভ্যুত্থানের চেষ্টা করেছিল, তারা রাষ্ট্রদ্রোহের অপরাধ করেছে, এজন্য তাদের চড়া মূল্য দিতে হবে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, অভ্যুত্থান চেষ্টার ঘটনায় পুলিশ ও অভূত্থানকারীসহ ৬০ জন নিহত হয়েছে। এছাড়া অভ্যুত্থান চেষ্টার প্রধান পরিকল্পণাকারীসহ সেনাবাহিনীর ৭৫৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।ইস্তামম্বুলের বিদ্রোহী সেনারা আত্মসমর্পণ করেছে। তবে আঙ্কারার ঘটনা অস্পষ্ট। এদিকে যুক্তরাষ্ট্র তার নেতৃত্বাধীন ন্যাটো জোটভুক্ত দেশটির এই ঘটনায় এরদোগান সরকারের প্রতি পূর্ণ সমর্থন প্রকাশ করেছে।

রয়টার্স জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি অভ্যুত্থানচেষ্টার খবর পেয়ে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে টেলিফোন করে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত বেসামরিক সরকারের প্রতি ওয়াশিংটনের পূর্ণ সমর্থন প্রকাশ করেছেন। রয়টার্স বলছে, একযুগের বেশি সময় ধরে তুরস্ক শাসন করে আসা ডানপন্থী সরকারপ্রধান এরদোগানকে ক্ষমতা থেকে উৎখাতের এই প্রচেষ্টা সফল হলে তা হতো কয়েক বছরের মধ্যেপ্রাচ্যে ক্ষমতার বড় ধরনের পালাবদল। প্রসঙ্গত, এর আগেও সামরিক অভ্যুত্থান চেষ্টার ইতিহাস আছে তুরস্কের; ১৯৯৭ সালে সর্বশেষ অভ্যুত্থানে ডানপন্থী সরকার ক্ষমতাচ্যুত হয়েছিল।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ