সিলেটের আতিয়া মহল ভাড়াটিয়াদের কাছে বুঝিয়ে দেবে পুলিশ

১১৫ বার পঠিত

সিলেট নগরীর ২৭ নং ওয়ার্ডের শিববাড়ি এলাকার জঙ্গি আস্তানা হিসেবে পরিচিত আতিয়া মহলে বোমা নিষ্ক্রিয়করণ অপারেশন শেষ করেছে র‌্যাব। সোমবার বিকেলে দশদিন ব্যাপী অপারেশনের সমাপ্তি ঘোষণা করে পুলিশকে ভবনটি বুঝিয়ে দেয় র‌্যাব।

আর পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, যাবতীয় আলামত সংগ্রহ করে মঙ্গলবার সকাল ১০ থেকে আতিয়া মহলের ভাড়াটিয়াদের কাছে নিজ নিজ ফ্ল্যাট বুঝিয়ে দেবেন তারা।

২৩ মার্চ জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে এই ভবনটি পুলিশ ঘিরে রাখার পর ২৫ মার্চ সকালে পাঁচতলা ভবনটির ২৮ টি ফ্ল্যাটের ৭৮ জন বাসিন্দাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে সেনাবাহিনী। সে সময় এক কাপড়ে বেরিয়ে আসা ভবনের বাসিন্দারা সবধরণের জিনিসপত্রই ফেলে আসেন নিজ নিজ ফ্ল্যাটে। ফলে এই কদিন ধরে অনেকটা মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা। ভবনে ফেলে আসা নিজেদের মূল্যবান জিনিসপত্র ফিরে পাওয়া নিয়েও শঙ্কা রয়েছে তাদের মধ্যে।

সোমবার বিকেলে অপারেশন ক্লিন আতিয়া মহলের সমাপ্তি ঘোষণা করে র‌্যাব-৯ এর অধিনায়ক লে. কর্ণেল আবু হায়দার আজাদ আহমদ বলেন, র‌্যাবের বোমা নিষ্ক্রিয়করণ টিম গত ৩ এপ্রিল থেকে এই ভবনে অপারেশন শুরু করে। নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা কিছুটা সময় নিয়ে অভিযান চালাই। অভিযানে আতিয়া মহল থেকে অবিস্ফোরিত অবস্থায় ৯ টি বিস্ফোরক উদ্ধার করে নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে বলে জানান তিনি। এছাড়া ভবনটিতে বোমা তৈরির আরো সরঞ্জাম ছিলো বলে জানান লে. কর্ণেল আজাদ।

র‌্যাবের অপারেশন সমাপ্তি ঘোষণার পরপরই পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) কর্মকর্তারা আতিয়া মহলে প্রবেশ করে বলে জানান সিলেট মহানগর পুলিশের উপ কমিশনার (দক্ষিণ) বাসুদেব বণিক।

তিনি বলেন, তারা ভবনটি থেকে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করবেন। এরপর মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে ওই ভবনটির ভাড়াটিয়াদের কাছে তাদের নিজ নিজ ফ্ল্যাট বুঝিয়ে দেওয়া হবে। তবে ভবনে বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ না থাকায় মঙ্গলবারই ভাড়াটিয়ারা নিজেদের ফ্ল্যাটে উঠতে পারবেন না জানিয়ে তিনি বলেন, তারা তাদের জিনিসপত্রগুলো নিয়ে যেতে পারবেন।

রাতেই আতিয়া মহলের সত্ত্বাধিকারী উস্তার আলীর কাছে পুরো ভবনটি বুঝিয়ে দেওয়া হবে বলে জানান সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (গণমাধ্যম) জেদান আল মুসা।

গত ২৩ মার্চ মধ্যরাতে এই আতিয়া মহলে জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পায় পুলিশ। ওই রাত থেকে ভবনটি ঘিরে রাথার পর ২৫ মার্চ সকাল থেকে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ নাম দিয়ে অভিযানে নামে পুলিশ। প্রথমে আতিয়া মহলের ৩০টি ফ্ল্যাটে আটকে পড়া ২৮ টি পরিবারের ৭৮ জন সদস্যকে নিরাপদে উদ্ধার করা হয়। পরে শুরু হয় জঙ্গিবিরোধী অভিযান। ২৮ মার্চ অভিযান শেষে চার জঙ্গি নিহতের খবর জানায় সেনাবাহিনী। ২৫ মার্চ আতিয়া মহলের বাইরে বিস্ফোরণে র‌্যাব ও পুলিশ কর্মকর্তাসহ ৭ জন নিহত হন।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শহীদুর রহমান জুয়েল, সিলেট ব্যুরো #

শহীদুর রহমান জুয়েল (উদয় জুয়েল), সিলেট ব্যুরো ০১৭২৩৯১৭৭০৪

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com