সিলেট ছাত্রদল নিয়ে কাজী মেরাজের ফেইসবুক স্ট্যাটাস

২৬ বার পঠিত

সম্মানীত সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির নির্বাচিত শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। সবিনয় অনুরোধ করে আপনাদের দৃষ্ঠি আকর্ষন করছি। দয়া করে আপনাদের হস্তক্ষেপের মাধ্যমে সিলেট ছাত্রদল কে আবারো সঠিক নেতৃত্বে ফিরিয়ে এনে ছাত্রদলের অতীত ঐতিহ্য পুনরুদ্ধার করুন। বিগত ২০/৩০ বছর থেকে আপনারা সহ ছাত্রদলের সাবেক অনেক নেতারাই আজ বিএনপির নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন। আপনাদের মেধা ত্যাগ ও শ্রমের মাধ্যমেই সিলেটে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ছাত্রদলের শক্তিশালী অবস্থান। তখকার দিনেও অনেক গ্রুপিং কোন্দল ছাত্রদলের রাজনীতিতে ছিল। কিন্তু সেটা ছিল নেতৃত্বের প্রতিযোগিতার, প্রতিহিংসার নয়।

যদিও সে সময়ে হামলা-পাল্টা হামলা মারামারি কোন অংশে কম ছিলনা। তবুও দলের বৃহত্তর স্বার্থে সবাই ছিলেন ঐক্যবদ্ধ। যে কোন সমস্যায় প্রত্যেক গ্রুপের নেতাকর্মীরা বসে আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করে অনন্য নজির স্থাপন করেছেন। সেই সময়েও বিভিন্ন কমিটি গঠন হয়েছে তবে সেখানে গ্রুপিং কোন্দল ব্যাতিরেকে সকল গ্রুপের পরিক্ষিত নেতাকর্মীদের দিয়েই কমিটি হয়েছে। কিন্তু আজ দেশ ও জাতির চরম ক্রান্তিলগ্নে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারুন্যের অহংকার তারেক রহমান যখন গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারের ডাক দিয়েছেন। সেই সময়ে সিলেট ছাত্রদলকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে কার স্বার্থে। ছাত্রদলের একজন কর্মী হিসেবে আমার প্রশ্ন। আজ দলের স্বার্থ জলাঞ্জলী দিয়ে কতিপয় সুবিধাভোগীদের দিয়ে কমিটি গঠনের নামে সিলেট ছাত্রদলকে হাস্যরসে পরিনত করা হচ্ছে।

অতীতে গ্রুপিং কোন্দল থাকলেও এক জায়গায় সবাই এক ছিলেন আর তা হলো নেতৃত্ব নির্বাচনে ত্যাগীদের মুল্যায়ন। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, সাম্প্রতিক সময়ে কমিটি গঠন নিয়ে সিলেটে যা হচ্ছে এটাকে গ্রুপিং বলা যায়না। ছাত্রদলের সকল ভিত্তি ও ঐতিহ্যকে জলাঞ্জলী দিয়ে যে নোংরামীর আশ্রয় নেয়া হয়েছে তা গোটা জাতীয়তাবাদী শক্তির জন্য চরম লজ্জার। বিগত কয়েক দিন থেকে ছাত্রদলের পুর্নাঙ্গ কমিটি অনুমোদন শিরোনামে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে ও সামাজিক যোগাযোগ মিডিয়ায় যা হচ্ছে তা ছাত্রদলের সকল অর্জনকে ম্লান করে দিচ্ছে। কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের অনুমতি ছাড়া যে বা যারা এই মিথ্যা সংবাদ প্রচার করাতে ব্যাস্ত হচ্ছেন- তারা কি আবারো ত্যাগী ও নিবেদিত প্রান নেতাকর্মীদের হামলা-পাল্টা হামলার মুখোমুখি হওয়ার পথ প্রশ্বস্ত করছেন? এমন প্রশ্ন ত্যাগী নির্যাতিত নেতাকর্মীদের।

পরিতাপের বিষয় যে- এমনিতেই বিগত ১০ বছর থেকে ছাত্রদলে কোন কমিটির রিক্রুট হচ্ছেনা। তারপর এই কমিটিকে কেন্দ্র করে নিজেদের মধ্যে যা হচ্ছে এসব দেখে আগামীতে আর নতুন নেতাকর্মী সংগঠনে যোগ দেয়া থেকে দুরে সরে যাবে। সংগঠনের প্রতি ছাত্র সমাজের আকর্ষন ও শ্রদ্ধাবোধ বলতে আর কিছু থাকবেনা কিনা সে ব্যাপারে সন্দেহ থাকাটাই স্বাভাবিক। আর যদিও নতুন ছাত্ররা যোগ দেয় তবে প্রতিযোগিতার মানসিকতা তাদের মাঝে যেমন থাকবে না। তেমনী দলের প্রতি মায়া ও নেতাদের প্রতি শ্রদ্ধাবোধও থাকবেনা। কারন তারা দেখতে পাচ্ছে বিগত ১৫/২০ বছর থেকে যারা নিজেদের জীবন বাজী রেখে পরিবার পরিজন থেকে নিগৃহীত হয়ে মামলা, হামলা ও নির্যাতন সয়ে ছাত্রদলকে সংগঠতি করতে রাজপথে ভুমিকা রেখে আসছেন আজ তাদেরকে বাদ দিয়ে কতিপয় সুবিধাভোগিদের দলের নেতৃত্ব বসানো হচ্ছে।

ত্যাগী ও পরিক্ষিত নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে ব্যাক্তি স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে চাটুকার ও তোষামোদকারীদের দিয়ে এক পেশে কখনো আংশিক আবার কখনো পুর্নাঙ্গ কমিটি নামে যেসব ভুয়া কমিটি প্রকাশ হচ্ছে তা কোন বিবেকবান শহীদ জিয়ার সৈনিক মেনে নিতে পারে নি আর পারবেও না। আজ কমিটির নামে সিলেট ছাত্রদলে যে হ-য-ব-র-ল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে তা কিন্তু আমাদের তরুন প্রজন্মের ছাত্রদল কর্মীদের জন্য সর্বোপরি সংগঠনের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর ও লজ্জাজনক। আর নতুন কর্মীরা বুঝবে দক্ষিণ পুর্ব এশিয়ার বৃহত্তম ছাত্র সংগঠনে প্রতিযোগিতা করে মেধার পরীক্ষায় কাউকে উত্তীর্ণ হতে হয়না। সুবিধাবাদী অবস্থানে থেকে চাটুকারীতা করেই পদ-পদবী অর্জন করা যায়। সুতরাং এই অবস্থা আর চলতে দেয়া যায়না। এভাবে চলতে থাকলে বাসার সামনে গলির মুখে শুধু মিছিলের ব্যানারে কিছু মুখ দেখা যাবে।

কিন্তু সাহসী অবস্থান তৈরীর মত কোন নেতাকর্মী খুজে পাওয়া যাবেনা। তাই সিলেট ছাত্রদলের এই দুর্দিনে অভিভাবক সংগঠন হিসেবে সিলেট বিএনপিকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। শহীদ জিয়ার আদর্শের একজন নগন্য কর্মী হিসেবে বিএনপি নেতৃবৃন্দের প্রতি আমার বিনীত অনুরোধ শক্ত হাতে আপনারা প্রিয় সংগঠন ছাত্রদলকে তাঁর ঐতিহাসিক মুল ¯্রােতে ফিরিয়ে আনুন। কতিপয় সুবিধাভোগিদের হাতে ক্ষদ-বিক্ষত সিলেট ছাত্রদলের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেয়ার পথ থেকে দক্ষিণ পুর্ব এশিয়ার বৃহত্তম ছাত্র সংগঠনকে রক্ষা করুন। সকল গ্রুপের ত্যাগী ও পরিক্ষিত নেতাকর্মীদের সমন্বয়ে একটি সুন্দর ও সকলের কাছে গ্রহনযোগ্য কমিটি গঠনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করুন।

আপনাদের ভুলে গেলে চলবেনা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বলে গেছেন- ছাত্রদল হচ্ছে বিএনপির ভ্যানগার্ড। এই ভ্যানগার্ডকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষার গুরু দায়িত্ব আপনাদেরই। সিলেটের শত শত জানবাজ দলের জন্য নিবেদিত প্রান আপনাদের দিকে তাকিয়ে রয়েছে। ছাত্রদলের ভাইদের প্রতি অনুরোধ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কাদা ছুড়াছুড়ি বন্ধ করে বিএনপি নেতৃবৃন্দের সাথে সমন্বয় করে শক্তিশালী সিলেট ছাত্রদল গড়ে তুলুন। তাহলে সিলেট ছাত্রদল তার অতীত গৌরবোজ্জল ঐতিহ্য ফিরে পাবে। লেখক: কাজী মেরাজ সভাপতি: মদন মোহন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রদল, সিলেট। আহ্বায়ক : সুনামগঞ্জ জেলা জাতীয়তাবাদী ফোরাম সিলেট।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শহীদুর রহমান জুয়েল, সিলেট ব্যুরো #

শহীদুর রহমান জুয়েল (উদয় জুয়েল), সিলেট ব্যুরো ০১৭২৩৯১৭৭০৪

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com