ঝিনাইদহে গৃহবধূকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা

এই সংবাদ ২৩ বার পঠিত

ঝিনাইদহ # ঝিনাইদহের শৈলকুপার বড়দা গ্রামে রোজিনা আক্তার তমা (২৮) নামে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ ও নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। একটি প্রভাবশালী মহল ঘটনার ধামা চাপা দিতে লাশ রাস্তার উপর ফেলে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। বুধবার রাত ১০ টার দিকে বড়দাহ গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে।

 

পুলিশ রাস্তার পাশ থেকে তমার লাশ উদ্ধার করেছে। নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, শৈলকুপার বড়দাহ গ্রামের আব্দুল আজিজের মেয়ে রোজিনা খাতুন ২ সন্তানের জননী। তিনি শৈলকপুার কেষ্টপুর গ্রামের মাসুদ রানার স্ত্রী। তার ছেলে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়ে ৬ষ্ট শ্রেণিতে পড়ছে। আর মেয়ের বয়স ৪ বছর। রোজিনার স্বামী মাসুদ রানা ঢাকায় একটি কোম্পানিতে চাকরি করেন।

রোজিনার পিতা আব্দুল আজিজ জানান, বুধবার রাতে তারাবি নামাজের পর বাড়ির সবাই ঘুমিয়ে পড়ে। রাত ১০টার দিকে বাড়ির পাশে হৈচৈ শুনে ঘুম ভেঙ্গে যায়। রাস্তায় জটলা দেখে এগিয়ে যায়। সেখানে দেখি আমার মেয়ের লাশ পড়ে আছে। তিনি আরো জানান, বাড়িতে ঘুমিয়ে থাকা মেয়ের লাশ রাস্তায় উপর পড়ে থাকতে দেখে তার সন্দেহ হয়। তিনি অভিযোগ করেন পাশের পান বরজে তমার উপর পাশবিক নির্যাতনের পর তাকে হত্যা করা হয়েছে। পান বরজে ধস্তাধস্তির আলামত রয়েছে, কিন্তু পুলিশ সেদিকে না গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হবার গল্প তৈরিতে ব্যস্ত বলে তমার বাবার অভিযোগ।

এলাকাবাসীর অভিযোগ তমাকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে একটি প্রভাবশালী মহল। এরপর ঘটনার ধামাচাপা দিতে রাস্তাায় লাশ ফেলে সড়ক দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে। অথচ রাস্তায় কোন রক্ত নেই। প্রতিবেশিরা অভিযোগ করেন, হয়তো ধর্ষকদের তমা চিনে ফেলায় তাকে হত্যা করা হয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শৈলকুপা থানার এসআই কামাল হোসেন জানান, খবর পেয়ে রাস্তার পাশ থেকে গৃহবধূ রোজিনার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

গৃহবধূ রোজিনাকে ধর্ষণ ও হত্যা করা হয়েছে কিনা তা ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে। শৈলকুপা থানার ওসি তরিকুল ইসলাম জানান, বিষয়টি জটিল বলে মনে হচ্ছে। আমরা প্রথমে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু বলে মনে করছিলাম। তিনি জানান, ময়নাতদন্ত করে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com