খুলনা নগরীতে ৩০ মিনিটের বৃষ্টিতে হাটু পানি!

১০৩ বার পঠিত

মোহাম্মদ রাহাদ রাজা,খুলনা বিভাগীয় স্টাফ রিপোর্টারঃ শনিবার (২২ এপ্রিল/১৭) সকালে ৩০ মিনিট ভারী বর্ষণের ফলে ডুবে যায় খুলনা মহানগরী। শহরের বিভিন্ন সড়কে জমে থাকা হাটু পানি ভেঙ্গে গন্তব্যে যেতে হয়েছে শহরবাসীকে।

খুলনা আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিরুল আজাদ আমাদের খুলনা বিভাগীয় স্টাফ রিপোর্টার কে জানান, গতকাল শনিবার খুলনায় ৩৫ মিনিটে ১৬.৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। ২ দিন আগে খুলনায় ১৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। বঙ্গোপসাগরে বায়ুচাপের তারতম্য বেশি হওয়ার কারণে গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা সৃষ্টি হচ্ছে। এর প্রভাবে ভারী বৃষ্টিসহ দমকা হাওয়া বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে বৃষ্টির সঙ্গে ৪০ কিলোমিটার বেগে দমকা হাওয়া ছিল। তিনি বলেন, আরও ২-১ দিন এ অবস্থা থাকতে পারে। এ অবস্থায় মংলা সমুদ্র বন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত ও নৌ বন্দরকে ১ নম্বর নৌ হুঁশিয়ারী সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।”

বৃষ্টির পানি জমে থাকায় ও জোয়ারের পানি এবং পেড়ি মাটি জমে ড্রেনগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায়, সংস্কার না করা পর্যন্ত সামান্য কৃষ্টিতেই মহানগরীতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। এ ছাড়াও শহর ঘেষা খালগুলো ভরাট হয়ে যাওয়ার কারণেও জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে।
কেসিসি মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনি বলেন, নগরীর পানি নিষ্কাশনের পথগুলো শহরের বাইরের খাল ও জলাভূমির সঙ্গে মিশে গেছে। জলাভূমিগুলো ভরাট হয়ে যাওয়ার পানি নিষ্কাশনে বাধা সৃষ্টি হচ্ছে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবান এ্যান্ড রুরাল প্লানিং ডিসিপ্লিনের অধ্যাপক ড. মোঃ রেজাউল করিম জানান, নদীর পৃষ্ঠদেশ উঁচু হওয়ায় জোয়ারের সময় শহরে পানি ঢুকে যায়। এছাড়া পানি প্রবাহের গতিপথও পাল্টে গেছে। এ কারণে জলাবদ্ধতা নিরসনে নতুন করে ভাবতে হবে।  

নগর পরিকল্পনাবিদ আবির-উল জব্বার বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে নদীর পানি শহরের ঢুকে যায়। এই পানি যাতে শহরের ঢুকতে না পারে সে জন্য শহর রক্ষাবাঁধ নির্মাণ এবং নদী ও খালের কয়েকটি সংযোগস্থলে পাম্প বসানোর পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। এ প্রকল্পগুলো একনেকে অনুমোদন হলে ২০২১ সালের মধ্যে তা বাস্তবায়নের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হবে।

কেসিসির ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ মনিরুজ্জামান জানান, মহানগরীতে জলাবদ্ধতা নিরসনে আগাম প্রস্তুতি হিসেবে ছোট দু’টি এস্কেভেটর মেশিন দিয়ে ওয়ার্ডের ছোট-বড় ড্রেনের পেড়ি মাটি কাটার কাজ শুরু হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সব ওয়ার্ডের ড্রেনের মাটি কেটে পানি নিষ্কাশনের ব্যাবস্থা করা হবে।
অবৈধ খাল দখলকারী উচ্ছেদ গঠিত কমিটির আহ্বায়ক ২৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলী আকবর টিপু জানান, নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে কেসিসি অচিরেই খাল দখলকারীদের উচ্ছেদ অভিযানে নামবে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com