কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ৮ম শ্রেণীর স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের শিকার : ধর্ষক প্রেপ্তার

২০৮ বার পঠিত

মোঃ রাজন আমান, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি # কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুরে ৮ম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের শিকার হয়েছে। পুলিশ ধর্ষককে গ্রেপ্তার করে সোমবার দুপুরে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। দৌলতপুর উপজেলার প্রাগপুর হাইস্কুলের ৮ম শ্রেণীর ওই স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের শিকার হলে পুলিশ ধর্ষককে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানান, দৌলতপুর উপজেলার  প্রাগপুর গ্রামের জনৈক আমজাদ হোসেনের মেয়ে প্রাগপুর হাইস্কুলের ৮ম শ্রেণীর স্কুল ছাত্রীকে আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের গরুড়া গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে জনি (২২) শনিবার দুপুরে কৌশলে ডেকে নিয়ে পার্শ্ববর্তী মেহেরপুর (গাংনী) উপজেলার বামুন্দি গ্রামে নিয়ে যায়। জনি ওই ছাত্রীকে তার ফুপার বাড়িতে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষন করে এবং ওইদিন তাকে আটকিয়ে রেখে রাতেও কয়েক দফা ধর্ষন করে। পরদিন রবিবার সকালে ধর্ষক জনি স্কুল ছাত্রীকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে এবং ধর্ষনের কথা কাউকে না বলার হুমকি দিয়ে তার নিজ বাড়িতে পৌঁছে দেয়।

 ধর্ষিতা কিশোরী ধর্ষনের ঘটনা তার পরিবারের লোকজনকে জানালে ধর্ষিতার পিতা আমজাদ হোসেন বাদী হয়ে দৌলতপুর থানায় ধর্ষনের মামলা করে যার নং ৫০। মামলার সূত্র ধরে দৌলতপুর থানা পুলিশ রোববার রাতে গরুড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে ধর্ষক জনিকে গ্রেপ্তার করে। এদিকে ধর্ষিতা স্কুল ছাত্রী গতকাল অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে স্থানীয় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়। স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের বিষয়ে দৌলতপুর থানার ওসি আহমেদ কবীর হোসেন জানান, স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের শিকার হলে ধর্ষনের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে এবং অভিযুক্ত ধর্ষক জনিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মোঃ রাজন আমান, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি

১। নাম : মোঃ রাজন আমান (সাংবাদিক)। ২। পিতার নাম : মোহাম্মদ রাহাদ রাজা (সাংবাদিক)। ৩। মাতার নাম : মিসেস্ আমেনা রাহাদ (সাংবাদিক)। ৪। স্থায়ী/বর্তমান ঠিকানা (সকল প্রকার যোগযোগ) : মোঃ রাজন আমান (সাংবাদিক) এম,চাঁদ আলী শাহ্ রোড ভেড়ামারা, কুষ্টিয়া। মোবাইল : ০১৭২৪-৮৮৮১২৫। ৫। বয়স : ২৪ বৎসর। ৬। ধর্ম : ইসলাম (সুন্নী)। ৭। জাতীয়তা : বাংলাদেশী। ৮। শিক্ষাগত যোগ্যতা : বি,এ (পাশ)। ৯। সাংবাদিকতা পেশায় বাস্তব অভিজ্ঞতা : জাতীয় দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক, মাসিক পত্রিকায় বাস্তব অভিজ্ঞতা ০৭ বৎসর।

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com