লক্ষ্মীপুরে সরকারী কাজ ফাঁকি দিয়ে নিজের পক্ষে মানববন্ধন : ডা. মামুন

৩৬ বার পঠিত

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুর পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের কর্মচারীদের দিয়ে নিজের পক্ষে মানববন্ধন করানোর অভিযোগ উঠেছে এই বিভাগের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক ডা. আশফাকুর রহমান মামুনের বিরুদ্ধে। রোববার বিকেল ৩টার দিকে জেলা জজ আদালতের সামনের সড়কে আধাঘন্টা ব্যাপি এ মানববন্ধন করে তারা।

গত ১০ অক্টোবর ফারহানা আক্তার নামে এক নারী বাদী হয়ে ডা. মামুনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে আদালতে মামলা করেন। ওই মামলার প্রতিবাদে এ মানববন্ধন করা হয়।

ডা. মামুন লক্ষ্মীপুর পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ও সহকারী পরিচালক (সিসি) এবং মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার (ক্লিনিক) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

এদিকে অফিস চলাকালিন সময়ে সরকারি কাজ ফাঁকি দিয়ে কর্মচারীরা মানববন্ধনে অংশ নেয়ায় জেলাব্যাপি বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।  

জানা গেছে, বেলা ১২ থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের পরিবার পরিকল্পনা সহকারী, পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক, ফ্যামেলি ওয়ের ফ্যায়ার ভিজিটর ও উপসহকারী মেডিকেল অফিসাররা জেলা শহরের টাউন হল এলাকায় জড়ো হয়। একপর্যায়ে তারা লক্ষ্মীপুর পৌর সুপার মার্কেটের সামনে এসে ডা. মামুনের পক্ষে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তির ফটোকপি বিলি করেন। পরে বিকেলে ৩টার দিকে আদালতের সামনের সড়কে গিয়ে মানববন্ধন করে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে মানববন্ধনে অংশ নেয়া পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের একাধিক মাঠকর্মী জানান, দুপুর ২টার দিকে একটি মিটিংয়ের কথা বলে তাদের ডেকে আনেন ডা. মামুন। পরে তারা বাধ্য হয়ে ডা. মামুনের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তির ফটোকপি বিলি ও মানববন্ধন করেন।

এব্যপারে ডা. আশফাকুর রহমান মামুন জানান, তাকে ভালো জেনে বলেই তার বিভাগের কর্মচারীরা তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছেন। মিটিংয়ের কথা বলে মানববন্ধনকারীদের ডেকে আনার বিষয়টি সত্য নয় বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গত ৭ অক্টোবর শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে জেলা শহরের শাখারী পাড়ার ছোটপুল এলাকায় ফারহানা আক্তার নামে(৩২) এক নারীকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে দুর্বৃত্তরা। তিনি লক্ষ্মীপুর মহিলা কলেজ থেকে উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ডিগ্রী শেষ বর্ষের পরীক্ষার্থী। এছাড়াও লক্ষ্মীপুরে সেইভ দ্যা চিলড্রেন এর মা-মনি প্রকল্পের কর্মী ছিলেন। এ ঘটনায় গত ১০ অক্টোবর ফারহানা আক্তার বাদী হয়ে ডা. মামুনের বিরুদ্ধে লক্ষ্মীপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন।

ফারহানা অভিযোগ করেন, লক্ষ্মীপুরে কর্মরত অবস্থায় ডা. আশফাকুর রহমান মামুনের সঙ্গে তাঁর সুসম্পর্ক গড়ে উঠে। গত বছরের ২৭ ডিসেম্বর ৩০ লাখ টাকা দেনমোহরে সিলেট এলাকার ‘সুরমা ভ্যালি’ নামের রেস্ট হাউজে মামুনের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাঁর স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দেওয়া নিয়ে মামুনের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হয়। তার জের ধরেই তাঁকে হত্যার চেষ্টা করা হয়।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সুব্রত দেব নাথ

সিনিয়র নিউজরুম এডিটর

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com