শরীয়তপুরে বন্যা আর নদীভাঙনে ম্লান ঈদ আনন্দ

২৩ বার পঠিত

দেশজুড়ে ঈদের আনন্দ থাকলেও খাবারের সন্ধান, ঘরবাড়ি মেরামত আর ত্রাণের অপেক্ষায় দিন কাটাচ্ছে বন্যা আর নদীভাঙন কবলিত মানুষ। শরীয়তপুরের বেশ কয়েকটি উপজেলায় ঈদের দিনেও ছিল না এর ব্যতিক্রম। যশোরে তিন উপজেলায় পানিবন্দি ২৬ হাজার পরিবারের ঈদ কেটেছে আশ্রয়কেন্দ্রে। ছেলে-মেয়েদের জন্য ঈদের দিনেও একটু ভাল খাবারের আয়োজন করতে না পেরে হতাশ এসব পরিবার।

আবাদী জমি, পাকা দালান, সাজানো সংসার কদিন আগেও সবই ছিল আলেয়া বেগমের। এক মাসের বন্যা এরপর নদী ভাঙনে সব গেছে তার। দুই সন্তানসহ কোনরকমে দিন চলছে তাঁদের।

আলেয়ার মত শরীয়তপুরের অনেক পরিবার এখন জীবন যাপন করছেন খোলা আকাশের নিচে। ঈদের নামাজ, পশু কোরবানি কিংবা স্বজনের সাথে আনন্দ উদযাপন কিছুরই ছোঁয়া ছিল না এসব এলকায়।

নতুন পোশাক দূরে থাক ঈদের দিনে ভাল কোন খাবারও জোটেনি এখানকার মানুষের ভাগ্যে। ঈদের দিনও ব্যস্ত থাকতে হয়েছে নদীভাঙনের কবল থেকে সহায়সম্বল সরিয়ে নেয়ার কাজে।

যশোরের তিন উপজেলার ৩৩ ইউনিয়নের প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষ এখনও পানিবন্দি। এখানকার প্রায় ২৬ হাজার পরিবার ঈদ করেছে আশ্রয়কেন্দ্রে। কৃষিপ্রধান এ অঞ্চলের মাঠ ও ঘের তলিয়ে যাওয়ায় বেকার মানুষগুলোর ঘরে নেই ঈদ আনন্দ।

দীর্ঘদিন পানিবন্দি থাকায় অনেকেই এখন পরিবার-পরিজন থেকে বিচ্ছিন্ন। এমনকী জামাতে ঈদ জামাত আয়োজনও সম্ভব হয়নি দুর্গত এসব এলাকায়।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সুব্রত দেব নাথ

সিনিয়র নিউজরুম এডিটর

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com