৫০ হাজার টাকা চাঁদা না পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান ও তার পুত্র থানা ছাত্রলীগ সভাপতির নেতৃত্বে ঝালকাঠির কীর্তিপাশা হিন্দু পরিবারের উপর তান্ডবের ঘটনায় মামলা

৩৭ বার পঠিত

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ দাবীকৃত ৫০ হাজার টাকা চাঁদা না পেয়ে ১টি হিন্দু পরিবারের ঘরবাড়ী ভেঙ্গে-গুরিয়ে দিয়ে লুট পাটের ঘটনায় ঝালকাঠির কীর্তিপাশার বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান আঃ শুক্কুর মোল্লা ও তার পুত্র সদর থানা ছাত্রলীগ সভাপতি রফিকুল ইসলাম রাহাতসহ নামধারী ৬জন ও অজ্ঞাত ২০/২৫ জনকে আসামীর বিরুদ্ধে (এমপি মং নং ৮১/১৬ (ঝাল) মামলা দায়ের করা হয়েছে। সিনিয়ার জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে বিচারক জাহেদ আবেদিন ঝালকাঠি থানার পুলিশের ওসিকে মামলাটি রেকর্ড করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দিয়েছে। সোমবার ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্য সুখরঞ্জন ব্যাপারি বাদী হয়ে দায়েরকৃত মামলায় নামধারীদের মধ্যে উল্লেখিত দু’জন সহ চেয়ারম্যানের ছোটভাই ই¯্রাফিল মোল্লা, চেয়ারম্যানের ছোট পুত্র র‌্যাবেন মোল্লা, সামশুল হক মোল্লা ও নিরু হাওলাদারকে আসামী করা হয়েছে।
     মামলা সূত্রে জানাগেছে, বহু পূর্ব থেকেই বাংলার আপেল খ্যাত পেয়ারা ও সবজি চাষের অধ্যষুত এলাকায় সদর উপজেলার কীর্তিপাশা ইউনিয়নের আ’লীগ সমর্থিত বর্তমান চেয়ারম্যান আঃ শুক্কুর মোল্লা স্থানীয় ব্যবসায়ীদের চাঁদা কাছ থেকে ব্যাবসা করে আসছে। চাঁদা না দিলেই তাদের উপর নেমে আসত নির্যাতন-হয়রানি, মিথ্যে মামলার ও জমিজমা দখলের খড়গ। সে অনুযায় প্রতি বছরই পেয়ারার মৌসুমে সুখরঞ্জন ব্যাপারী প্রভাবশালী শুক্কুর মোল্লা ও তার পুত্র রাহাত মোল্লার সহ তাদের বাহিনীকে ধার্যকৃত ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দিয়ে আসছিলেন। কিন্তু গত পেয়ারার মৌসুমে সুখরঞ্চন ব্যপারী তাদের দাবীকৃত ৫০ হাজার টাকা দিতে অস্বীকার করায় তাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের মিথ্যে মামলা দায়েরের ভয় দেখায় ও জমিজমা থেকে উচ্ছেদ করে ভারতে পাঠিয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে আসছিল।
       শনিবার সকাল ১০টায় উক্ত চাঁদার টাকার না পেয়ে ক্ষিপ্ত কীর্তিপাশা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান শুক্কুর মোল্লা, তার ভাই উপজেলা যুবদল সহসভাপতি ই¯্রাফিল মোল্লা, পুত্র থানা ছাত্রলীগ সভাপতি রাহাত মোল্লা ও ছাত্রলীগ কর্মী র‌্যাবন মোল্লার নেতৃত্বে ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা সুখরঞ্চন ব্যপারীর বসত ঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক তন্ডব চালায় ও ঘরবাড়ী ভেঙ্গে ভিটা মাটির সাথে মিশিয়ে দেয়। এসময় তাদের মূল্যবান মালামাল, স্বর্নালংকার, দলিলপত্র লুটপাট করে প্রায় ৭ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন করেছে বলে ঐ পরিবারটি অভিযোগ করেছে।
        প্রসঙ্গত, আ’লীগের দলীয় চেয়ারম্যান ও তার পরিবারের সদস্যদের নেতৃত্বে সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা শিল্পমন্ত্রী আলহাজ্ব আমির হোসেন আমু এমপির কানে পৌছলে তিনি দারুন ক্ষোভ ও উদ্বেগ প্রকাশ করেন। মন্ত্রী আমুর নির্দেশে জেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক খান সাইফুল্লাহ পনির, সাংগঠনিক সম্পাদক কাউন্সিলর তরুন কর্মকার ও কালী বাড়ী পূজা উদযাপন কমিটির সেক্রেটারী সাবেক কাউন্সিলর প্রনব কুমার ভানু সহ সংখ্যালঘু নেতৃবৃন্দ সরেজমিন পরিদর্শন করে নির্যাতিত পরিবারকে শান্তনা ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন। পশ্চিম ডুমুরিয়া গ্রামের এ সংখ্যালঘু পরিবারটির ভিটা মাটি দখল করেই ক্ষান্ত হয়নি। দেশ ছেড়ে ভারত চলে যেতে’ হুমকী দেয়ায় তারা বর্তমানে জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় দিন কাটাচ্ছে বলে জানাগেছে।# SUKKUR-RAHAT-0

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

অাহিদ সাইফুল ঝালকাঠি প্রতিনিধি #

অাহিদ সাইফুল ঝালকাঠি প্রতিনিধি # মোবাইল নাম্বারঃ +৮৮০১৭১৬৬৩৫৪৭৩

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com