তেঁতুলিয়ায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকা দ্বারে দ্বারে, প্রেমিক পলাতক

৩০ বার পঠিত

এস.কে.দোয়েল, বিশেষ প্রতিনিধি: তেঁতুলিয়ায় ভালবেসে বিপাকে পড়েছেন এক কলেজ ছাত্রী। নিজের মনের মানুষটি তার সাথে এমন প্রতারণা করবে জানা ছিল না তার। শরীর-মন দেওয়া হয়েছে প্রেমিককে। কিন্তু বিপত্তি বিয়ের। তাই বিয়ের দাবি নিয়ে কলেজ ছাত্রী প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে দাঁড়ালেও মেনে নিচ্ছে না প্রেমিকের পরিবার। প্রেমিকের বাড়ির লোকজনের হাতে শারীরিক নির্যাতন ভাগ্যে জুটেছে তার। তেঁতুলিয়া উপজেলায় তিরনইহাট ইউনিয়ন ঘটেছে এই ঘটনা।

জানা যায়, তিরনইহাট ইউনিয়নের দগরবাড়ী গ্রামের আলমগীর মিয়ার কন্যা চায়নার সাথে একই গ্রামের খোকা মিয়ার পুত্র সুজনের সাথে মন দেয়া নেয়া চলছিল দীর্ঘদিন ধরেই। গত ১৮ মে বিয়ের দাবি নিয়ে চায়না প্রেমিক সুজনের বাড়িতে অবস্থান নেয়। কিন্তু সুজনের বাড়ির লোকজন তাদের সম্পর্ককে মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানায় এবং চায়নার উপর অমানসিক শারীরিক নির্যাতন চালায়। এতে চায়না ঘটনাস্থলে গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়লে স্থানীয় ইউপি সদস্য তজমল তাকে উদ্ধার করে তার পরিবারে পৌছে দেন। পরবর্তীতে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়।

বিষয়টি নিয়ে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ, গ্রামবাসী কয়েক দফা আপোষ-মীমাংসার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয় দুই পক্ষের অসহযোগিতার কারণে। ঘটনার পর থেকে প্রেমিক সুজন কৌশলে গা ঢাকা দিয়েছে বলে জানা যায়। এ ব্যাপারে এই প্রতিবেদককে ভিকটিম চায়না জানান, সুজনের সাথে আমার দীর্ঘদিনের সম্পর্ক।

বিয়ের প্রলোভনে সে একাধিকবার আমার সাথে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছে এবং ঘটনার দিন সে আমাকে মোবাইল ফোনে তার বাড়িতে বিয়ের কথা বলে ডেকে নেয় এবং পারিবারিক চাপের কারণে পালিয়ে যায়। তবে সুজনের পরিবার চায়নার এ দাবিকে মিথ্যা ও বানোয়াট বলে জানান। এ বিষয়ে আজ বুধবার দুপুরে চায়নার বাবা আলমগীর হোসেনের সাথে কথা বললে তিনি জানান, যারা আমার মেয়ের সাথে প্রতারণা করেছে তাদের সঠিক বিচার চাই এবং এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com