আগৈলঝাড়ায় চুরির অপবাদ সইতে না পেরে যুবকের আত্মহত্যা

৩৮ বার পঠিত

অপূর্ব লাল সরকার, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) # বরিশালের আগৈলঝাড়ায় এক যুবককে মিথ্যে অপবাদ দিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করা হয়েছে। অপবাদ সইতে না পেরে অবশেষে ওই যুবক গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার জন্য একটি মহল নানা তৎপরতা শুরু করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, উপজেলার রতœপুর ইউনিয়নের মোল্লাপাড়া গ্রামের নির্মল হালদারের মৃত্যুর পর তার বিধবা স্ত্রী ঊষা হালদার ও পুত্র নিতাই ওরফে বুলু (২০) পার্শ্ববর্তী ঐচারমাঠ গ্রামে বুলুর মামা বাড়িতে বসবাস করে আসছিল।

সোমবার সকালে বুলুর মা বিধবা ঊষা হালদার স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, অতিসম্প্রতি ঐচারমাঠ বাজারের জনৈক সুশান্ত বালার ভ্যারাটিজ স্টোরে চুরি হয়। ওই ঘটনায় নিতাই ওরফে বুলুকে চোর সন্দেহ করে দোকানের মালিক সুশান্ত বালা, স্থানীয় কল্যাণ চন্দ্র, সাগর হালদার, নীহার বাড়ৈসহ ৮-১০ জন লোক বুলুকে ডেকে নিয়ে মুখে গামছা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করে। ঊষা তার ছেলেকে অকারণে নির্মম নির্যাতন করায় এ ঘটনা স্থানীয় শিক্ষক দুলাল চন্দ্র বাড়ৈ, ঝন্টু বালা, মনীন্দ্র বিশ্বাস, রনজিত বিশ্বাসের কাছে জানিয়ে বিচার দাবি করেন।

তারা নির্যাতনকারী সুশান্ত গংদের ৫ হাজার টাকা জরিমানা করায় ক্ষিপ্ত হয়ে সুশান্ত ও তার সহযোগীরা এলাকায় বুলুর বিরুদ্ধে অপপ্রচার শুরু করে। চোরের অপবাদের গ্লানি সইতে না পেরে শুক্রবার রাতে ঘরের পার্শ্ববর্তী একটি গাব গাছে গলায় গামছা পেঁচিয়ে বুলু আত্মহত্যা করে। খবর পেয়ে শনিবার সকালে থানা পুলিশ নিহত বুলুর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেন। আগৈলঝাড়া থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম জানান, প্রাথমিকভাবে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় তদন্ত চলছে। নিহতের ময়নাতদন্তের রিপোর্ট ও তদন্তে বুলুকে নির্যাতনের প্রমাণ পেলে আত্মহত্যা প্ররোচনাকারী হিসেবে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

অপূর্ব লাল সরকার, বরিশাল প্রতিনিধি #

01912-346484

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com