আগৈলঝাড়ার বাগধা স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি ও অধ্যক্ষের যোগসাজশে অর্থ আত্মসাৎ

২০ বার পঠিত

অপূর্ব লাল সরকার, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) # প্রভাবশালী জামাত নেতা অধ্যক্ষের যোগসাজশে মুক্তিযোদ্ধা সভাপতির নিয়োগ বানিজ্যের বিরুদ্ধে শিক্ষা মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগের পরেও বহাল তবিয়তে রয়েছেন অভিযুক্তরা। রাজনৈতিক দর্শণ ভিন্ন হলেও অবৈধভাবে অর্থ হাতিয়ে নিতে মুক্তিযোদ্ধা ও জামাতী নেতার সখ্যতায় মুক্তিযোদ্ধাসহ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে মন্ত্রণালয় অভিযোগ দিলেও দীর্ঘদিনেও কোন তদন্ত না হওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন ওই কলেজের গভর্নিং বডির সদস্যগণসহ এলাকার সাধারণ জনগণ। সভাপতি ও অধ্যক্ষের ঘুষ-দূর্নীতি, স্বজনপ্রীতি আর অনিয়মের ঘটনাটি ঘটেছে বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার বাগধা মাধ্যমিক বিদ্যালয় এন্ড কলেজে।

২০১৫ সালের ৩০ নভেম্বর বাগধা স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য মোজাফ্ফর সরদার, মো. মিন্টু মিয়া, আবুল কালাম মিয়া ও রুস্তুম মৃধা স্বাক্ষরিত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে লিখিত অভিযোগে জানান, কলেজ অধ্যক্ষ ও জামাতী নেতা আ. রহমান মিয়ার সহযোগিতায় কলেজ সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা দাবিদার উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব আবুল বাশার হাওলাদার স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে নিয়োগ বানিজ্য, ঘুষ-দুর্নীতিসহ বিভিন্ন অনিয়ম আর স্বেচ্ছাচারিতার কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি ধংসের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছেছে। ওই অভিযোগে আরও বলা হয়- গত বছর ১১ ফেব্র“য়ারী প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের কথা বলে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ বিক্রি করে ৫ লাখ ৫৭ হাজার টাকা. ব্যাংক থেকে উত্তোলন ২ লাখ টাকা, কলেজ ফান্ড থেকে নেয়া ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা, স্কুল শাখা থেকে নেয়া ২০ হাজার টাকাসহ মোট ৯ লাখ ১৭ হাজার টাকার কোন হদিস নেই।

স্বজনপ্রীতি আর আর্থিক দূর্নীতির মাধ্যমে অধ্যক্ষ আ. রহমান মিয়ার সহযোগিতায় সভাপতি আবুল বাশার হাওলাদার বিধি বহির্ভুতভাবে স্বজনপ্রীতি করে তার ভায়রা আব্দুল করিমকে কলেজ শাখার অফিস সহকারী পদে, ভাগ্নে বউ শিরিন আক্তার শিল্পীকে প্রভাষক (পৌরনীতি ও সুশাসন) পদে, অমল চন্দ্র বৈদ্যকে ৪ লাখ টাকার বিনিময়ে লাইব্রেরিয়ান পদে নিয়োগ দেয়ার পাঁয়তারা করে আসছেন। এছাড়াও ৫ লাখ টাকা নিয়ে স্কুল শাখায় বিএসসি শিক্ষক লিটন রায়কে, ৫ লাখ টাকায় স্কুল অফিস সহকারী পদে উজ্জ্বল দাস, ১ লাখ টাকার বিনিময়ে খৃস্টধর্ম শিক্ষিকা পদে নিয়োগের জন্য ওই বছর ১৪ নভেম্বর নিয়োগ নাটক করা হয়।

অবৈধ বানিজ্যের নিয়োগ নাটক বুঝতে পেরে অপর সদস্যরা বাঁধা দিলে আবার ২৭ নভেম্বর নিয়োগ পরীক্ষার নাটক করেন তারা। নিয়োগ বানিজ্যর অভিযোগ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচির ছাড়াও মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহা-পরিচালক, বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানসহ ৭টি দপ্তরে প্রেরণ করেন। এর আগে গত বছর ৩ ডিসেম্বর ওই প্রতিষ্ঠানের অভিভাবক সদস্যরা স্থানীয় সংসদ সদস্যের কাছে সভাপতি ও অধ্যক্ষের প্রতিষ্ঠান ফান্ড থেকে ৯লাখ ১৭ হাজার টাকা আত্মসাতের ফিরিস্তি তুলে তাদের হাত থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে রক্ষার আবেন জানান।

গোয়েন্দা সংস্থার তালিকানুযায়ী দূর্নীতিবাজ ওই অধ্যক্ষ আ. রহমান মিয়া জামাত বাগধা ইউনিয়ন শাখা ১২ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরী কমিটির প্রথম সদস্য। নাম না প্রকাশের শর্তে কলেজের অন্যতম সদস্য জানান, দূর্নীতি আর অনিয়মের কারণে অধ্যক্ষ আ. রহমান মিয়া তিন বছর সাময়িক বহিস্কার ছিলেন। পরে তদন্ত কমিটিকে ম্যানেজ করে অধ্যক্ষ নিজ হাতে কমিটির কাছে পদত্যাগপত্র দিলে তাকে পুনর্বহাল করা হয়। তবে নিয়োগের জন্য নেয়া ও কলেজ ফান্ডের টাকা পুনরুদ্ধারের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

নাম না প্রকাশের শর্তে কলেজের শিক্ষকেরা জানান, সভাপতি ও অধ্যক্ষের স্বেচ্ছাচারিতার কারণে শিক্ষার্থীদের শিক্ষার সার্বিক পরিবেশ নষ্ট হবার কারণে শিক্ষার্থী সংখ্যাও কমে যাচ্ছে। শিক্ষকদের মধ্যে তৈরি হয়েছে গ্র“পিং। অভিভাবকরা দূর্নীতিবাজ অধ্যক্ষ ও সভাপতিকে অপসারণ করে টাকার বিনিময়ে অযোগ্য শিক্ষক নিয়োগ বন্ধ করে শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জোর দাবি জানিয়েছেন।

এব্যাপারে অভিযুক্ত অধ্যক্ষ আ. রহমান মিয়া বলেন, ওই অভিযোগগুলো সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। যেসব দপ্তরে অভিযোগগুলো দেয়া হয়েছে তারা সেগুলো বাতিল করেছে। তাই অভিযোগের ব্যাপারে তারা আমাদের ডাকেনি। তিনি জামাতের রাজনীতি করেন না জানিয়ে আরও বলেন, আমার বাড়ি কোটালীপাড়া। সেখানে খোঁজ নিয়ে দেখেন।

সভাপতি আবুল বাশার হাওলাদার বলেন, কলেজের গাছ বিক্রির টাকা চেকের মাধ্যমে ফেরৎ দিয়েছি। এছাড়া আর কোন অনিয়ম নেই। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ দলের লোকজন আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচার চালাচ্ছে। বিগত দিনে কলেজের যে উন্নয়ন হয়নি আমি সভাপতি হয়ে তা হয়েছে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

অপূর্ব লাল সরকার, বরিশাল প্রতিনিধি #

01912-346484

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com