৪ ডিসেম্বর লক্ষ্মীপুর হানাদার মুক্ত দিবস

৪১ বার পঠিত

কিশোর কুমার দত্ত, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : আজ ৪ ডিসেম্বর লক্ষ্মীপুর হানাদার মুক্ত দিবস। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের পুরো সময় জুড়ে লক্ষ্মীপুর জেলা ছিল পাক-হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসর রাজাকার-আলবদরদের হত্যা, লুট, অগ্নিসংযোগ ও ধর্ষণের ঘটনায় ক্ষত-বিক্ষত। ১৯৭১ সালের এই দিনে বীর মুক্তিযোদ্ধারা সাঁড়াশি আক্রমণ চালিয়ে, এ জেলায় পাকিস্থানী হানাদার বাহিনীকে আত্মসমর্পণে বাধ্য করে। জেলাবাসী মুক্তিপায় পাক-বাহিনী ও তাদের দোসর রাজাকার- আল বদরদের হত্যা, লুট, আর পাশবিক নির্যাতনের হাত থেকে।

লক্ষ্মীপুরকে হানাদার মুক্ত করতে মুক্তিযোদ্ধারা দীর্ঘ ৯ মাস জেলার বিভিন্ন স্থানে পাক হানাদার বাহিনীর সাথে ১৯টি সম্মুখ যুদ্ধসহ ২৯টি দু:সাহসিক অভিযান চালায়। এতে শহীদ হন ১১৪ জন মুক্তিযোদ্ধাসহ কয়েক হাজার মুক্তিকামী বাঙ্গালী। পাক-হানাদার বাহিনীকে প্রতিরোধ করতে গিয়ে সর্বপ্রথম মুক্তিযোদ্ধারা লক্ষ্মীপুর শহরের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া রহমতখালী নদীর ওপর নির্মিত মাদাম ব্রীজটি উড়িয়ে দেন। আজও এর স্মৃতি হিসেবে ব্রীজের লোহার পিলার দাঁড়িয়ে আছে।

৭১’ এর মুক্তিযুদ্ধকালীন এ জেলায় উল্লেখযোগ্য রণক্ষেত্র গুলো হল- কাজির দিঘীর পাড়, মিরগঞ্জ, চৌধুরী বাজার, দালাল বাজার, রায়পুর আলীয়া মাদ্রাসা, ডাকাতিয়া নদীর ঘাট, চর আলেকজান্ডার সিড গোডাউন, প্রতাপগঞ্জ হাই স্কুল, রামগঞ্জ হাই স্কুল, ডাকবাংলা ও রামগঞ্জের গোডাউন এলাকা। এ সব যুদ্ধে সৈয়দ আবদুল হালিম বাসু, মুনসুর আহম্মেদ, আবু সায়েদ, আবুল খায়ের, নজরুল ইসলাম, জয়নাল ও আতিকসহ ৩৫জন বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ হাজার হাজার নিরীহ মুক্তিকামী মানুষ শহীদ হন।

মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাস ধরে পাকহানাদার বাহিনী ও তার দোসররা লক্ষ্মীপুর জেলার বিভিন্ন স্থানে চালায় নারকীয় তান্ডবলীলা। হানাদার বাহিনী শহরের বাগবাড়ীতে ক্যাম্প স্থাপন করে বিভিন্ন এলাকা থেকে মুক্তিকামী হাজার হাজার নর-নারীকে ধরে এনে টর্চার সেলে টর্চার চালাত এবং যুবতীদের পাশবিক নির্যাতন শেষে হত্যা করে বাগবাড়ীস্থ গণকবর, মাদাম ব্রীজ এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে গর্তে ফুতে ফেলতো এবং অনেককেই ফেলে দিত রহমতখালীর খরস্রোত নদীতে।

১৯৭১ সালের ২১মে ভোর রাতে লক্ষ্মীপুর শহরের উত্তর ও দক্ষিণ মজুপুর গ্রামের হিন্দু পাড়ায় পাকহানাদার বাহিনী ভয়াবহ তান্ডবলীলা চালায়। বাড়ী ঘরে আগুন লাগিয়ে, বহু মানুষকে গুলি ও বেওনেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করাসহ ব্যভিচার চালায় তারা। এ সময় ১১টি বাড়ির ২৯টি বসত ঘর আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে আগুনে দগ্ধ হয়ে ও হানাদারদের গুলিতে প্রাণ হারায় প্রায় ৪০জন নিরস্ত্র বাঙ্গালী। এ সব নরকীয় হত্যাযজ্ঞের আজও নীরব সাক্ষী হয়ে আছে শহরের বাগবাড়ীস্থ গণকবর, মাদাম ব্রীজ, পিয়ারাপুর ব্রীজ ও মজুপুরের কয়েকটি হিন্দু ও মুসলমান বাড়ী।

একাত্তরের ১ ডিসেম্বর থেকে, প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল হায়দার চৌধুরী এবং সুবেদার আব্দুল মতিনের নেতৃত্বে দেড় শতাধিক মুক্তিযোদ্ধারা সাঁড়াশি আক্রমণ চালায় হানাদার বাহিনীর বিভিন্ন ক্যাম্পে। অবশেষে, ৪ ডিসেম্বর আত্মসমর্পন করে হানাদার বাহিনী ও এর দোসররা।

লক্ষ্মীপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার মাষ্টার আনোয়ারুল হক বলেন, স্বাধীনতার ৪৪ বছরেও এসব হত্যাকান্ডের বিচারকার্য সম্পন্ন না হওয়ায় আজও সে স্মৃতি মনে করে প্রিয়জনদের হারানোর ঘটনায় শিহরে উঠেন অনেকে।
মহান মুক্তিযুদ্ধের সেই নারকীয় হত্যাযজ্ঞের দোসর ও যুদ্ধাপরাধীদের দ্রুত বিচার দাবী করেছেন লক্ষ্মীপুর বাসী।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সুব্রত দেব নাথ

সিনিয়র নিউজরুম এডিটর

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com