শীতল বোরহান-এর একগুচ্ছ কবিতা

৭৪ বার পঠিত

বিশ্বাস-অবিশ্বাস

::
আমি বিশ্বাসের প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করি না তাকে
আমি মনে করি সেও একটা ঘূর্ণি বাতাস
এসেই হুট করে চলে যায় আবার।

গতকাল মধ্যবয়সী এক স্ত্রী কুকুর
পুরুষ কুকুরের সঙ্গে যৌন-সঙ্গমের পর
তৃপ্তির বীজে যেভাবে আলোড়িত করল শিরা-উপশিরা
ওটাকেও কিন্তু ভালোবাসা বলে—

আমি বিশ্বাসের প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করি না তাকে
আমি মনে করি ঋতুবৈচিত্রের মতো
এই দেহটাও একটা ভূমি
সময়ে সময়ে এক-একটা ঋতু আসবে আর যাবে!

পশ্চাতে কী হলো…কী ঘটে গেল আচমকা, হুলস্থুল
তা খেয়ালে নেবার কোনো প্রয়োজন নেই

আমার কাছে বিশ্বাস মানে কোনোকিছুর মান রক্ষা নয়
তীলে তীলে নিজেকে নিঃশেষ করার নামই বিশ্বাস,
স্বস্তির শেষ আশ্রয়।

হৃদয় অভিধান

::
আমি জন্ম থেকে সেই একটি ফুলকেই আমি আপন ভেবে এসেছি, জবা; শৈশব, কৈশোর এমনকি মধ্যযৌবনের সহস্র স্বপ্নের ভিড়ও সাদামাটা গন্ধহীন ওই-ই আমার কাছে চির আরাধ্যধন। হৃদয়-অভ্যন্তরে যে হরফে লিখেছি তার নাম কোনো অভিধানেই নেই সে হরফ। প্রকৃতার্থে প্রেম তো ওরকমই হয়– অস্তিত্বের মর্মে মর্মে যার জন্যে মিশে থাকে স্বচ্ছ অনুভবের একমাত্র মায়াকাজল।

এক খড়কুটো কাঙালের দিনলিপি

::
তোমাকে ছাড়াও দিন কাটে গত হয় রাত, চৈত্রের খাঁখাঁ দুপুরে রোদে গা মাখি; রেলের ধারের ওই বটবৃক্ষের তলায় বসে ঠাকুরের ‘পুনশ্চ’ পাঠে মত্ত হই। দীর্ঘশ্বাসহীন সপ্তাহ, মাস পার করছি তুমুল আনন্দে! মিরপুরে যাই, খেলা উপভোগ করি, হাততালি দিই; ক্লান্তিতে জিহ্বা যখন ছোট হয়ে আসে একাই তখন মামের জল করি শেষ, ব্যস্ত-নগরীর তীব্র যানজট সয়ে ফিরে আসি ফের নিজ গৃহে!

কেবল একা বিস্তৃত গগনের দিকে তাকালেই বুকের ঠিক বাম পাশে কেমন যেন হু হু করে ওঠে! মনে হয় কী যেন হারিয়ে গেছে আমার!

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com