“মুক্তির ছোট গল্প” একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার জীবনের গল্প (ভিডিও)

৪৫৩ বার পঠিত

আগামী ২৬ মার্চ রাত ১০ টায় একুশে টিভিতে প্রচারিত হবে একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার জীবনের সত্য ঘটনা অবলম্বনে একটি কাহিনীচিত্র। যার মূল গল্প লিখেছেন কৃষিবিদ দৌলত হোসাইন। যিনি জনতা ব্যাংক এর এজিএম এবং মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করেছেন মো. মামুন খান, যিনি কারুকাজ প্রোডাকশনের স্বনামধন্য পরিচালক রিয়াজুল রিজু’র প্রধান সহকারী হিসেবে বেশ কয়েক বছর যাবৎ কাজ করেছেন। পরিচালক হিসেবে এটাই তার প্রথম কাজ। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন: শতাব্দী ওয়াদুদ, সানজিদা প্রীতি, দৌলত, খলিলুর রহমান, কাদেরী, ফরহাদ ঠাকুর ও সায়কা আহমেদ সহ অনেকে।

কাহিনী: ক্লাস নাইনের ছাত্র মতিন বাবার অমতে এবং মায়ের সহযোগীতায় এক রাতে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেয়। সঙ্গী হিসেবে ছিল মায়ের দেয়া ১২৫ টাকা আর একটি সোনার চেইন। চেইন টি দিয়ে মা বলেছিল, খাবারের কষ্ট হলে চেইনটা বিক্রি করিস। বয়সে ছোট মতিন বড়দের মতোই সম্মুখ সমরে অংশ নিয়েছে প্রতিবার। বিজয়ের দিন কয়েক আগে তার দু পায়ে গুলি বিদ্ধ হয়। কয়েক মাস চিকিৎসার পর চিকিৎসকের পরামর্শে হাটুর নিচ থেকে পা দুটো কেটে ফেলতে হয়।

মতিন যুদ্ধে যাবার কারণে আলবদররা তার বাবাকে ধরে নিয়ে ভয়াবহ নির্যাতন করে। আলবদরের দলে তার দুই ছাত্র ছিল তারা কিছুদিন পর মতিনের বাবাকে ফিরিয়ে দিলেও তিনি মারা যান কদিন পরেই। তার কিছুদিন পর মা-ও মারা যায়। সঙ্গী হিসেবে থাকে একমাত্র বোন মুক্তি। যার জন্ম বিজয়ের সময়। মা মৃত্যুর আগে মুক্তিকে বলে যান, মতিনকে মুক্তিযোদ্ধা পূর্নবাসন কেন্দ্রে না পাঠিয়ে তার কাছে রাখতে। মায়ের কথামতো মুক্তি ভাইকে নিজের কাছে রাখে। মায়ের কথা মত বিয়ের পর স্বামীর বাড়ি নিয়ে আসে ভাইকে। কয়েক মাস না যেতেই মতিনের উপর বিরক্ত হয়ে মুক্তির উপর মানষিক নির্যাতন শুরু করে মুক্তির স্বামী রফিক।

কারনে অকারণে মুক্তিযোদ্ধা মতিন ও মুক্তি কে  অপমান করে রফিক। মুক্তিযোদ্ধা ভাইয়ের উপর এ ধরনের অত্যাচার মেনে নিতে পারে না মুক্তি। সবচেয়ে বড় কথা তার ভাই একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। সরকার তাকে যথেষ্ট ভাতা ও সম্মান দিচ্ছে। দেশের স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধে গিয়ে তিনি পঙ্গু হয়েছেন। তাকে সম্মান, শ্রদ্ধা জানানো উচিত স্বামীসহ সবার। সেই যৌক্তিকতা থেকেই ভাইয়ের পক্ষ হয়ে স্বামী রফিকের সাথে প্রায়ই ঝগড়া হয়।

রফিকের অত্যাচারে  অতিষ্ট হয়ে স্বামী সংসার সন্তান সব কিছু ছেড়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা ভাইকে নিয়ে মুক্তি বাড়ী থেকে বের হয়ে আসে এবং ভাবতে থাকে, জীবন বাজী রেখে দেশ স্বাধীন করতে গিয়ে তার ভাই পা হারিয়ে আজ পঙ্গু। তার কোন সমাজ নাই, সংসার নাই, ছোট বোনের আশ্রয়ে দিন কাটাচ্ছে, বোনের স্বামীর অপমান সইতে হচ্ছে। শেষ পর্যন্ত তার স্বামী, তার ভাইকে নিয়ে অন্য কোথাও চলে যেতে বলে। এতবড় বাংলাদেশে বোনের সংসারে আদর যতেœ থাকার সামান্যতম ঠাই নেই এই বিজয়ী বীর যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার। চোখের পানি মুছতে মুছতে হুইল চেয়ার ঠেলে ভাইকে নিয়ে অজানার পথে হাটা ধরে মুক্তি।

নাটকটি পরিবেশন করেছে ফ্ল্যাশব্যাক.কম

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মানিক ওমর বিনোদন প্রতিবেদক#

+8801766310000

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com