ভিন্ন জিম্বাবুয়ের টেস্ট জয়ের স্বপ্ন

সিরিজের একমাত্র টেস্ট। ওয়ানডে সিরিজ হেরে যাওয়া শ্রীলঙ্কার জন্য ঘুরে দাঁড়ানোর পালা। কিন্তু ম্যাচের লাগামটা তো জিম্বাবুয়ের হাতে! কলম্বো টেস্টটা জিততে হলে শ্রীলঙ্কার চাই ৩৮৮ রান। শ্রীলঙ্কার হাতে সময় রয়েছে এখনও দেড়দিন। কিন্তু ম্যাচের চতুর্থ ও পঞ্চম দিনের উইকেটে এই রান তাড়া করতে পারবে তো শ্রীলঙ্কা? সেটি অবশ্য সময়ই বলে দিবে। কিন্তু তাদের জন্য যে কাজটা সহজ হবে না এটি বলা যায়। শ্রীলঙ্কার মাটিতে চতুর্থ ইনিংসে এত রান তাড়া করে জিততে পারেনি কোনো দল। ২০১৫ সালে পাল্লেকেলেতে সর্বোচ্চ ৩৭৭ রান তাড়া করে পাকিস্তান ৭ উইকেটে জিতেছিল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেই।

শ্রীলঙ্কায় ৩০০ বা এর বেশি রান তাড়া করে জয়ের ঘটনা আছেই আর মাত্র দুটি। ২০০৬ সালে কলম্বোর পি সারা ওভালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৩৫২ ও ১৯৯৮ সালে কলম্বোর এসএসসিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩২৬ রান তাড়া করে জিতেছিল স্বাগতিকরা। সিকান্দার রাজার সেঞ্চুরিতে দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৭৭ রান তুলেছে জিম্বাবুয়ে। সিকান্দার রাজা খেলেছেন ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। রঙ্গনা হেরাথের বলে বোল্ড হওয়ার আগে ১২৭ রান করেছেন তিনি। তার ২০৫ বলের ইনিংসটি ৯টি চার ও একটি ছক্কায় সাজানো।

আগের দিন ৫৭ রানে অপরাজিত থাকা ম্যালকম ওয়ালার আজ থেমেছেন ৬৮ রানে। দিলরুয়ান পেরেরার বলে উপুল থারাঙ্গার হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেছেন। এছাড়া ৪০ রান এসেছে পিটার মুরের ব্যাট থেকে। শন উইলিয়ামস করেন ২২ রান। শেষ দিকে নেমে ৪৮ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলেছেন অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার। ত্রিপানো করেছেন ১৯ রান। এমপুফু অপরাজিত আছেন ৯ রানে। রঙ্গনা হেরাথ দ্বিতীয় ইনিংসেও দুর্দান্ত বোলিং করেছেন। ৬ উইকেট লাভ করেছেন তিনি। দিলরুয়ান পেরেরা ঝুড়িতে জমা করেছেন তিন উইকেট। আর এক উইকেট নিয়েছেন লাহিরু কুমারা।

কলম্বোর আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে গত শুক্রবার শুরু হয় ম্যাচটি। ম্যাচের প্রথমদিন টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় জিম্বাবুয়ে। প্রথম ইনিংসে তারা সব উইকেট হারিয়ে ৩৫৬ রান সংগ্রহ করে। দলের পক্ষে সেঞ্চুরি করেন ক্রেইগ আরভিন। ১৬০ রান করে আউট হন তিনি। শ্রীলঙ্কার পক্ষে রঙ্গনা হেরাথ ৫টি, লাহিরু কুমারা ২টি, দিলরুয়ান পেরেরা ১টি ও আসেলা গুনারত্নে ২টি করে উইকেট নেন। এরপর শ্রীলঙ্কা তাদের প্রথম ইনিংসের ব্যাট করতে নেমে ৩৪৬ রান সংগ্রহ করে অলআউট হয়ে যায়। দলের পক্ষে উপুল থারাঙ্গা ৭১ ও দিনেশ চান্দিমাল ৫৫ রান করেন। জিম্বাবুয়ের পক্ষে গ্রায়েম ক্রেমার ৫টি, শন উইলিয়ামস ২টি ও ডোনাল্ড তিরিপানো ১টি করে উইকেট নেন।

তারপর জিম্বাবুয়ে তাদের দ্বিতীয় ইনিংসের ব্যাট করতে নেমে ৩৭৭ রান সংগ্রহ করে অলআউট হয়ে যায়। দলের পক্ষে সেঞ্চুরি করেন সিকান্দার রাজা। ১২৭ রান করে আউট হন তিনি। টেস্ট ক্যারিয়ারে এটি তার প্রথম সেঞ্চুরি। এছাড়া ৬৮ রান করেন ম্যালকম ওয়ালার। শ্রীলঙ্কার পক্ষে রঙ্গনা হেরাথ ৬টি, দিলরুয়ান পেরেরা ৩টি ও লাহিরু কুমারা ১টি করে উইকেট নেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর
জিম্বাবুয়ে প্রথম ইনিংস: ৯৪.৪ ওভার ৩৫৬ (হ্যামিলটন মাসাকাদজা ১৯, রেজিস চাকাভা ১২, তারিসাই মুসাকান্দা ৬, ক্রেইগ আরভিন ১৬০, শন উইলিয়ামস ২২, সিকান্দার রাজা ৩৬, পিটার মুর ১৯, ম্যালকম ওয়ালার ৩৬, গ্রায়েম ক্রেমার ১৩, ডোনাল্ড তিরিপানো ২৭, ক্রিস এমপোফু ০*; সুরঙ্গা লাকমল ০/৫৮, লাহিরু কুমারা ২/৬৮, রঙ্গনা হেরাথ ৫/১১৬, দিলরুয়ান পেরেরা ১/৮৬, আসেলা গুনারত্নে ২/২৮)।

শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংস: ১০২.৩ ওভার ৩৪৬ (দিমুথ করুণারত্নে ২৫, উপুল থারাঙ্গা ৭১, কুসল মেন্ডিস ১১, দিনেশ চান্দিমাল ৫৫, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ ৪১, নিরোশান ডিকওয়েলা ৬, দিলরুয়ান পেরেরা ৩৩, আসেলা গুনারত্নে ৪৫, রঙ্গনা হেরাথ ২২, সুরঙ্গা লাকমল ১৪, লাহিরু কুমারা ১*; ক্রিস এমপোফু ০/৪১, ডোনাল্ড তিরিপানো ১/৩৮, সিকান্দার রাজা ০/৬০, গ্রায়েম ক্রেমার ৫/১২৫, ম্যালকম ওয়ালার ০/২, শন উইলিয়ামস ২/৬২)।

জিম্বাবুয়ে দ্বিতীয় ইনিংস: ১০৭.১ ওভার ৩৭৭ (হ্যামিলটন মাসাকাদজা ৭, রেজিস চাকাভা ৬, তারিসাই মুসাকান্দা ০, ক্রেইগ আরভিন ৫, শন উইলিয়ামস ২২, সিকান্দার রাজা ১২৭, পিটার মুর ৪০, ম্যালকম ওয়ালার ৬৮, গ্রায়েম ক্রেমার ৪৮, ডোনাল্ড তিরিপানো ১৯, ক্রিস এমপোফু ৯*; সুরঙ্গা লাকমল ০/৪৩, রঙ্গনা হেরাথ ৬/১৩৩, দিলরুয়ান পেরেরা ৩/৯৫, লাহিরু কুমারা ১/৭২, কুসল মেন্ডিস ০/১৬)।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
৩৯ বার পঠিত

Leave a Reply