ভালুকায় কৃষকের মাঠে ধানের বাম্পার ফলন

৪১ বার পঠিত

ভালুকা (ময়মনসিংহ)প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের ভালুকায় মাঠে মাঠে ফসল আর কৃষকের আনন্দে নবান্নের হাতছানি। আমনের মাঠে সোনালী ধানে ভরে উঠেছে ফসলের মাঠ। বা¤পার ফলনের আশা করছে কৃষি বিভাগ। ময়মনসিংহের ভালুকায় আমন ধানের আবাদ হয়েছে লক্ষ্যমাত্রার চাইতেও অনেক বেশী। ভালুকার সব এলাকায় সবুজের সমারোহে ফসলের মাঠে সোনালী ধানের মৌ মৌ গন্ধ জানান দিচ্ছে নবান্নের আগমনের আগাম বার্তা। নবান্ন সব সময়ই বাঙ্গালীর উৎসবের একটি অধ্যায়। নবান্ন মানেই পিঠা-পুলি ,ফিরনী –পায়েস ,নতুন ধানের চিড়া আর বিন্নী ধানের খই। বাড়ীতে নতুন কুটুম আর নবান্নের উৎসবে মাতোয়ারা। সেই অধ্যায়ের হাতছানি চোখে পড়ে ভালুকার বিভিন্ন ফসলের মাঠে। ভালুকায় এবার আমনের ফলন অন্যান্য বছরের তুলনায় অনেকটা ভালো।

উপজেলার পনাশাইল এলাকার কৃষক আকবর খান জানান-ধানের ফলন বেশ ভালো এবং কিছু পরিমাণে তাদের ধান কাটা শুরু হয়েছে। দেখা যায় বাড়ীতের ধান মাড়াইয়ে মহিলাদের ব্যাস্ততাও। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায় সবুজের সমারোহে ধানের পাতা ও শীষ ঝির ঝির বাতাসে দুল খাচ্ছে ,মিতালী করছে প্রকৃতির সাথে। কোথাও চোখে পড়ছে ধানের কচি ডগার মাঝখানে উকি মারছে সোনালী ধানের সবুজ ছড়া, কোথাও বা হালকা বাদামী রং আবার চোখে পড়ছে সোনালী শীষের মৌ মৌ গন্ধ এ যেন নবান্নের হাতছানি। আমন আবাদ ও ফলনের বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল আজম জানান, ভালুকায় আমন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৮৮০০ হেক্টর। তন্মধ্যে ৫২%বিরি ধান ৪৯জাত ও ২৬%বিআর ১১ধানের জাত বাকী গুলা স্থানীয় জাত ।

যদি কোন প্রাকৃতিক দুর্য্যোগ না হয় তাহলে আমরা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে পারবো ১৯৬০০ হেক্টর। তিনি আরো বলেন, উপজেলা কূষি অফিস ও মাঠ পর্যায়ে উপ সহকারী কূষি কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রদর্শনী মাঠসহ সার্বক্ষনিক তদারকি, সহযোগিতা ও কৃষকদের সঠিক পরামর্শে দেয়া হয়েছে ,পাশাপাশি এবার আবহাওয়া অনুকূলে ছিল বলে আশানুরুপ বা¤পার ফলন হয়েছে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সফিউল্লাহ আনসারী নববার্তা ষ্টাফ রিপোর্টার

আজো চেনা হরোনা নিজেকেই ...! 01715-787772

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com