,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আদিবাসীর উপর হামলা, অগ্নিসংযোগ ও নির্যাতনের প্রতিবাদে রাজশাহী সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন

লাইক এবং শেয়ার করুন

হেমন্ত মাহাতো # রাজশাহী জেলার শাহমুখদুম থানার ভুগরইল গ্রামের আদিবাসী পাহাড়ীয়া সম্প্রদায়ের উপর হামলা, অগ্নিসংযোগ ও নির্যাতনের প্রতিবাদে আদিবাসী ছাত্র পরিষদ ও আদিবাসী যুব পরিষদের উদ্যোগে আজ ২৪ নভেম্বর ২০১৫ তারিখ সকাল ১১ টায় রাজশাহী সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

মানববন্ধন কর্মসূচির সভাপতিত্ব করেন আদিবাসী যুব পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি হরেন্দ্রনাথ সিং। সঞ্চালনা করেন আদিবাসী ছাত্র পরিষদ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক নকুল পাহান। মানববন্ধনে বক্তব্য প্রদান করেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক বিমল চন্দ্র রাজোয়াড়, দপ্তর সম্পাদক সূভাষ চন্দ্র হেমব্রম, রাজশাহী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সুশেন কুমার শ্যামদুয়ার, রাজশাহী মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক আন্দ্রিয়াস বিশ্বাস, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি বিভূতী ভূষণ মাহাতো, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি হেমন্ত মাহাতো, আদিবাসী যুব পরিষদ রাজশাহী জেলার আহ্বায়ক নবদীপ লকড়া, যুগ্ম আহ্বায়ক হুরেন মুর্মু, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির নারী বিষয়ক সম্পাদক সুমিতা রবিদাস, সাংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক সাবিত্রি হেমব্রম, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহ-সভাপতি মহাদেব রবিদাস, রাজশাহী কলেজ  শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক দুলাল মাহাতো।

Adibashi Porisd
সংহতি বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান আলী বরজাহান, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি রাজশাহী মহানগর  শাখার সাধারণ সম্পাদক দেবাষিশ প্রমানিক দেবু, বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি রাজশাহী জেলার সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক প্রমুখ। উল্লেখ্য, রাজশাহী জেলার শাহমুখদুম থানার ভুগরইল গ্রামের আদিবাসী পাহাড়ীয়া সম্প্রদায়ের লোকজন  উচ্ছেদ আতংকে বসবাস করছেন।  একই গ্রামের মকশেদ আলীর নেতৃত্বে চিহ্নিত ভুমিদস্যুরা আবার নতুন করে সংঘটিত হচ্ছে। ঐ সকল ভূমি সন্ত্রাসীরা তাদের পূর্ব-পরিকল্পিত নিশানা বাস্তবায়ন করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। যে কারনে ভুক্তভোগী অসহায়  আদিবাসীদের মাঝে তীব্র আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

এরই ধারাবাহিতকায় গত ২১ নভেম্বর ২০১৫ পার্শবর্তী বিলে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে এলাকার সেরাজুল ইসলামের ছেলে জাহাঙ্গীরের(২২) নেতৃত্বে  ভূমিদস্যুরা গ্রামের আদিবাসী মেয়েদের মারধর করে এবং গ্রামের রতন বিশ্বাসের  বসতবাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে। এই ঘটনায়  ভুগরইল খ্রিষ্টানপাড়া আদিবাসী পাহাড়ীয়া সম্প্রদায়ের লোকজনের মধ্যে তীব্র আতংক বিরাজ করছে। এমনকি রাস্তা দিয়ে যাতায়াতে হুমকি দিচ্ছে বলে আদিবাসীরা অভিযোগ করেছে। এই ঘটনায়  আজ ২২ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে শাহমখদুম থানায় একটি আভিযোগ দায়ের করেছে।

জানা গেছে, এ সকল চিহ্নিত ভুমিদস্যুরা বিভিন্ন সময়ে উপজেলা সদর সহ বিভিন্ন স্থানে কৃষক ও ভূমি মালিকদের জমি জোর পূর্বক দখল করে নেয়। এরই ধারাবাহিকতায় ভুগরইল গ্রামের মিশনের দান করা জমি ও কবরস্থান দখলের পায়তারা করছেন তারা। বসত বাড়ি এখনো দখলে থাকলেও কবরস্থান প্রায় দখল করে ফেলেছেন এই ভূমিদস্যুরা। এমকি মিশনের জমিতে যে একটি পুকুর রয়েছে সেখানেও মাছ ধরতে বিভিন্নভাবে বাধা প্রদান করে আসছে। এছাড়াও ভূমিদস্যূরা রাস্তাঘাটে নারীদের বিভিন্নভা  উত্ত্যক্ত করছে  এতে তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় বসবাস করছে।

Adibashi Porisd
আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ঐ সকল চিহ্নিত ভূমিদস্যুদের তৎপরতা প্রতিহত করছে না বরং ভূমিদসূদের সহযোগীতা করছেন বিভিন্ন নামে।  
আদিবাসী  অধ্যুষিত এ অঞ্চলের অধিকাংশ জনগন স্বল্প শিক্ষিত এবং নিরক্ষর। তাদের জীবন জীবিকা কৃষি নির্ভর। মিশনের দানকৃত ৩০ শতক  জমির উপর এই গ্রামের ৫৫ টি পরিবার বসবাস করে আসছে। এসব নিরীহ নিরক্ষর কৃষকেরা কৃষি জমি চাষ ও অন্যের বাড়িতে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকে। ভূমিদস্যুরা উক্ত গ্রামে বিদ্যুত দেওয়ার নামে খোজ খবর নিয়ে এ আদিবাসী  নিরীহ নিরক্ষর জমি মালিকদের টার্গেট করে তাদের দুর্বলতার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ঐ সকল স্বল্প শিক্ষিত এবং নিরক্ষর কৃষকদের ভূল বুঝিয়ে তাদের জায়গা জমি দখল করে নেওয়ার পাঁয়তারা চালাচ্ছে।

চিহ্নিত এ সকল ভূমিদস্যুদের  সংঘবদ্ধ করার নেপথ্যে রয়েছে রাজশাহী শাহমখদুম থানায় বসবাসকারী অস্ত্রধারী, চাঁদাবাজ, হত্যা মামলার আসামী ও স্থানীয় কমিশনার। এ সকল চিহ্নিত ভূমিদস্যুদের ভূমি দখল তৎপরতার হাত থেকে রেহাই পেতে ভূক্তভোগী এলাকাবাসী ভূমি মন্ত্রনালয়, প্রশাসন সহ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর স্থানীয় ও উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কমনা করেছেন । এদিকে আদিবাসী গ্রামের মানুষের কথা, মিশনের দানের এই জমি যদি ভূমিদস্যুরা দখল করে নেয় তাহলে যুগ যুগ ধরে বসবাস করা ওখানকার আদিবাসীদের  গ্রামসহ বাড়ি ঘর ছেড়ে তাদের পালাতে হবে। এমন কি তাদের উচ্ছেদের হুমকিও দিয়ে রেখেছেন ভূমিদস্যুরা। তাই এই গ্রামের আদিবাসীরা  নিজ ভূমিতে পরবাসীর মতো জীবন যাপন করছেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, আদিবাসীদের প্রতি প্রতিনিয়ত নির্যাতন-নিপীড়ন বেড়েই চলেছে। ভূগরইল গ্রামের এই নির্যাতনের এই ঘটনা তারই নামান্তর। এই কর্মসূচি থেকে ভূগরইল গ্রামের আদিবাসীদের সার্বিক নিরাপত্তার দাবি জানানো হয়।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ