আজ বুধবার, ৫ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ২৮শে জিলহজ্জ, ১৪৩৮ হিজরী, শরৎকাল, সময়ঃ সন্ধ্যা ৬:৫১ মিনিট | Bangla Font Converter | লাইভ ক্রিকেট

আসছে ৫জি নেটওয়ার্ক

ইউটিউবে 4k সিনেমা দেখছেন। কিন্তু কিছুক্ষণ পর পর আটকে যাচ্ছে। খুব শিগগিরই বাফারিং এর কথা আপনি ভুলে যাবেন। কেননা, ২০২০ সালে চালু হতে যাচ্ছে ৫জি নেটওয়ার্ক। 

বিখ্যাত ফোন নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠান ভোডাফোনের অস্ট্রেলিয়ার টেকনোলজি বিভাগের প্রধান বেনয়েট হানসেন সিডনিতে অনুষ্ঠিত একটি ইভেন্টে তার দেয়া বিবৃতিতে বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়াতে শিগগিরই সুপার স্পিডি মোবাইল সার্ভিস শুরু হবে।’ 

পঞ্চম জেনারেশনের মোবাইল নেটওয়ার্কে থাকবে সত্যিকারের দ্রুত ডাউনলোড স্পিড যা বর্তমানে সারা পৃথিবীর চাহিদা। শুধুমাত্র এই নেটওয়ার্ক আপনার মোবাইলের মুভি দেখাকে নিরবিচ্ছিন্নতা প্রদান করবে না বরং স্বনিয়ন্ত্রিত গাড়িগুলো নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে নতুন মাত্রা পাবে। মোটাদাগে যেসব ক্ষেত্রে ইন্টারনেট অত্যাবশ্যকীয় প্রত্যেক ক্ষেত্রেই দ্রুত গতি যে কোনো কাজকে ত্বরান্বিত হবে। 

হানসেন বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার হবে পৃথিবীর মধ্যে প্রথম দেশ যারা ৫জি চালু করতে স্বক্ষম হবে ২০২০ সালের মধ্যে। এর সাথে এক বছর এদিক সেদিক হতে পারে।’ তিনি বিগত বছরগুলোতে অষ্ট্রেলিয়াতে নতুন প্রযুক্তি চালু করার ট্র্যাক রেকর্ড অনুসারে উক্ত মন্তব্য করেন।

তিনি আরও বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া উদ্যমের সাথে স্মার্টফোন প্রযুক্তির উন্নতি সাধন করেছে। স্মার্টফোন সর্বোচ্চ ব্যবহারে পৃথিবীর মধ্যে উন্নত দেশগুলোর মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার অন্যতম। নতুন কিছু গ্রহণ করার ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার জনগণের জুড়ি নেই। অস্ট্রেলিয়ার জন-সাধারণ নতুন কিছু বৃহৎ পরিসরে বহন করার সামর্থ্য রাখে।’ 

২০১১ সালে অস্ট্রেলিয়াতে ৪জি ব্যাপকভাবে চালু হয়। হানসেনের তথ্য মতে ৭০ শতাংশের বেশি ভোডাফোন গ্রাহক তাদের ফোন ৪জি ব্যবহার করছে। তিনি আশা করেন ২০১৬ সালের মধ্যে ৯০ শতাংশ মানুষ ৪জি ব্যবহার করবে। তবে কিছু এখনও পুরনো যুগে রয়ে গেছে। তিনি বলেন, ‘বিশ্বাস করুন  আমাদের এখনও ২জি গ্রাহক রয়েছে।’ 

২০১৫ সালে ভোডাফোন টেলিকমিউনিকেশন সার্ভিস প্রোভাইডারদের সাথে একটি চুক্তি করে। ফাইবার নেটওয়ার্কে টিপিজি বাড়ানোর জন্য সমঝোতা চুক্তি হয়। এই চুক্তির ফলে প্রতিষ্ঠানটি ৫জি চালু করার  ক্ষেত্রে এগিয়ে গেল। যদিও ৫জি আসার প্রথম ধাপে কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি। তবুও ইন্টারনেট জগতে এটি গেম চেঞ্জার হিসেবে কাজ করবে। সত্যিকারভাবে সারা পৃথিবী ৫জির স্বাদ না পেলেও ব্রিটিশ বিজ্ঞানীরা ৫জি তে রেকর্ড পরিমাণ গতি পেয়েছেন। যা প্রতি সেকেন্ডে ১ টেরাবাইট।

বিবিসির প্রতিবেদন অনুসারে এই গতিতে তাত্ত্বিভাবে ভবিষ্যতের ১০০ ‍গুণ বেশি মুভিগুলোকে তিন সেকেন্ডে ডাউনলোড করা সম্ভব। 

অস্ট্রেলিয়ার বৃহৎ মোবাইল নেটওয়ার্ক প্রোভাইডার টেলসট্রা ও ৫জি নেটওয়ার্ক নিয়ে আসার ইঙ্গিত দিয়েছে। ২০১৫ সালের বার্ষিক প্রতিবেদনে প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত প্রধান কার্য নির্বাহী এনড্রিও পেন নিশ্চিত করেছেন ২০২০ সালের মধ্যে তারা অস্ট্রেলিয়াতে ৫জি নিয়ে আসার পরিকল্পনা করেছে। 

অস্ট্রেলিয়ান অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস জানিয়েছে,‘আপনি ধারণা করতে পারেন ২০২০ সালে কোন কিছু সংযুক্ত করার চিন্তা করতে করতেই তা সংযুক্ত হয়ে যাবে।’ অস্ট্রেলিয়ার জনগণের এখন ৫জির জন্য প্রতীক্ষা করছে। 

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com