সিরিয়ার মানুষ ঘাস-পাতা-কুকুর-বিড়াল খেয়ে বেঁচে রয়েছেন

৩৩ বার পঠিত
নিজস্ব প্রতিবেদন ||  লতা-পাতা দিয়ে তৈরি ঝোল খেয়ে সিরিয়ায় বেঁচেবর্তে রয়েছে শৈশবহারানো শিশু, হাড় জিরজিরে বৃদ্ধ। মৃতের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ-কালীন মৃত্যুমিছিলকেও তা হার মানাতে পারে। এটাই ২০১৬-র সিরিয়া।

মানবতা হারিয়ে গিয়েছে সিরিয়ায়। খাবার নেই। বুভুক্ষু মানুষ পেটের জ্বালা জুড়োতে লতা-পাতা খেয়ে কোনওরকমে বেঁচে রয়েছেন সেখানে। ক্ষুধার্ত মানুষের হাত থেকে রক্ষা পায়নি শহরের কুকুর, বিড়ালও। একজন নয়, দু’ জন নয়, মাদায়া শহরের প্রায় চল্লিশ হাজার মানুষ এখন ঘাস-পাতা খেয়ে জীবনধারণ করছেন।

লেবানন সীমানার নিকটেই মাদায়া শহর। রাষ্ট্রসংঘ জানিয়েছে, অনাহারে ২৩ জন লোক ইতিমধ্যেই সেখানে মারা গিয়েছেন। এর মধ্যে শিশুও রয়েছে। বেশ কয়েক মাস ধরে মাদায়া শহর সরকারি বাহিনী এবং হিজবুল্লাহ-র নিয়ন্ত্রণে। গত বছরের অক্টোবরে শেষবারের মতো ত্রাণ পাঠানো হয়েছিল এই শহরে।

 

তার পর থেকে কিছুই পৌঁছয়নি । এই শহরের অবস্থা এখন ভয়াবহ। মানুষ আর মানুষ নেই সেখানে। আবদুল ওয়াহাব আহমেদ নামে মাদায়ার এক বাসিন্দা শহরের বাস্তব চিত্র তুলে ধরছেন। তিনি বলেন, ‘‘না-খেতে পেয়ে দু’ জন মানুষ বৃহস্পতিবার মারা গিয়েছেন। দুশো দিন ধরে মাদায়া অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে। এখানকার মানুষজন এখন মাটি, ঘাস, গাছের পাতা খেয়ে কোনওরকমে বেঁচে রয়েছে। কারণ, খাবার  আর অবশিষ্টই নেই। শীতে পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার নিচ্ছে। ঘাস, পাতাও ক্রমশ শুকিয়ে আসছে।’’

 

আবদুল রহমান নামে শহরের আর এক বাসিন্দা অন্য ছবি তুলে ধরেছেন। তাঁর বক্তব্য অনুযায়ী, শহরে এখন কোনও কুকুর, বিড়াল জীবিত নেই। মানুষ খেতে না পেয়ে কুকুর, বিড়াল নিধন করে তাদের মাংস খাচ্ছে। 

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সুব্রত দেব নাথ

সিনিয়র নিউজরুম এডিটর

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com