,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

রাবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ : প্রতিবাদে ছাত্রলীগের মানববন্ধন

লাইক এবং শেয়ার করুন

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি #  রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে ও যৌন হয়রানি ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনে দৃষ্টান্তমুলক  শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে রাবি শাখা ছাত্রলীগ। রোববার  দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে তারা এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। অভিযুক্ত শিক্ষক এটিএম রফিকুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এবং বেগম রোকেয়া হলের আবাসিক শিক্ষক এবং ওই ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষা (উর্দু)  বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যিালয়ের শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাউছার আহমেদ কৌশিকের স ালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন রাবি ছাত্রলীগের সভাপতি এম মিজানুর রহমান রানা, সাবেক কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সাইদুল ইসলাম রুবেল, রাবি শাখা ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি মতিউর রহমান মর্তুজা, রাবি শাখা বঙ্গবন্ধু প্রজম্মলীগের সভাপতি সবুজ সারোয়ার প্রমূখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, প্রগতিশীলতার মুখোশধারী এসব শিক্ষক যেসব অবমাননাকর আচরণ করছে তা প্রগতিশীলতার ক্ষেত্রে বাঁধা। ওই শিক্ষকের বহিষ্কার কেের  দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হয় যেন এ রকম ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে। শীঘ্রই দাবি মানা না হলে আরো কঠোর কর্মসূচি নেয়া হবে বলেও জানান বক্তারা। মানববন্ধন শেষে ওই ছাত্রী লিখিত অভিযোগে ওই শিক্ষকের বিচারের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি, প্রো-ভিসি, রেজিস্ট্রার ও ছাত্র উপদেষ্টার কাছে স্মারকলিপি প্রদান করে।

লিখিত অভিযোগে ওই ছাত্রী জানান, গত ২৩ নভেম্বর আমি হলের রুমে সিটের জন্য হল প্রাধ্যক্ষের সাথে দেখা করতে যাই। সেখানে হলের আবাসিক শিক্ষক রফিকুল ইসলামও ছিলেন। প্রথমে তারা আমার একাডেমিক পরিচয় জনতে চান। আমি আমার একাডেমিক পরিচয় প্রদান করলে তারা সিট দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে আমি আমার সাংগঠনিক পরিচয় প্রদান করি। সাংগঠনিক পরিচয় প্রদান করলে রফিকুল স্যার আমাকে এবং আমার ঐতিহ্যবাহী সংগঠন সম্পর্কে প্রাধ্যক্ষের সামনেই কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করেন। আমি তাদের ব্যবহারে মনক্ষুন্ন  হলে প্রাধ্যক্ষ ম্যাডাম আমাকে হলের সিটের জন্য আবেদন পত্র লিখতে বলে।

১৬ ডিসেম্বর র‌্যালি শেষ করে হলে ফিরতে দেরি হয় এবং হল গেটে রফিকুল ইসলাম স্যার আমাকে প্রাধ্যক্ষের রুমে দেখা করতে বলেন। আমি রুমে গেলে প্রথমেই তিনি আমাকে বলেন, ‘শুধু ছাত্রলীগ করলেই কি হলে সিট  হবে? হলে সিটের জন্য আমাদের কাছে আসতে হবে।’ এসময় তার কথাবার্তা এবং শারীরিক প্রকাশভঙ্গি ছিল আপত্তিকর ও অশোভনীয়।

অভিযুক্ত শিক্ষক রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ওই ছাত্রী ছাত্রলীগ কর্মী পরিচয়ে হলে সিট দাবি করে। আমরা তাৎক্ষনিক সিট না দিয়ে প্রক্রিয়া অনুযায়ী আবেদন করতে বলেছিলাম। এরপরে ওই মেয়ের সাথে আমার আর কেনো কথা হয়নি। এ অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট।’ এ ঘটনার ব্যাপারে জানতে চাইলে রাবি ছাত্রলীগের উপ-ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক ও ওই হলের আবাসিক ছাত্রী ইসরাত জাহান নিপা বলেন, মানববন্ধন হওয়ার পর এ বিষয়টি শুনলাম। আমাদের হলে এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটেছে বলে আমার জানা নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহান বলেন, এ বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের  প্রক্টরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ