‘বঙ্গবন্ধু সাম্প্রদায়িক মুক্তির স্বপ্ন দেখেছিলেন’- ইউজিসি চেয়ারম্যান

২২ বার পঠিত

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি: বঙ্গবন্ধু বাঙালির অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাম্প্রদায়িক মুক্তির স্বপ্ন দেখেছিলেন। বঙ্গবন্ধুই ছিলেন বাংলাদেশ। কেননা তার কথায় সাড়ে সাত কোটি মানুষ আন্দোলনে নেমেছিল, জীবন দিয়েছিল। তাই যতদিন লাল সবুজের পতাকা থাকবে ততদিন বঙ্গবন্ধুর কথা বলার মানুষ থাকবে। তার আদর্শ বেঁচে থাকবে। রাবিতে আলোচনা সভায় বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মান্নান

শনিবার সকাল ১১টায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সিনেট ভবনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির আয়োজনে ‘বঙ্গবন্ধু : স্বাধীন বাংলাদেশ ও উন্নয়ন’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান আলোচক হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন। অধ্যাপক মান্নান এসময় আরো বলেন, আপনি যে দলই করেন না কেন আপনাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কথা শুনতে হবে। তার আদর্শ অনুসরণ করতে হবে। কেননা বাংলাদেশের জন্ম হয়েছে বলেই আপনি দল করতে পারছেন। আর বঙ্গবন্ধু ছাড়া বাংলদেশের কথা চিন্তাই করা যায় না।

রাবি উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন বলেন, ‘যে কোনো যুদ্ধেরই একটা নিয়ম থাকে। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ক্ষেত্রে যুদ্ধের কোনো নিয়মই মানা হয়নি। ছোটো শিশু শেখ রাসেলকেও নির্মমভাবে হত্যার করা হয়। তাকে হত্যা করা হয়েছে তার আদর্শের জন্য। তার সেই আদর্শ হলো এ দেশের স্বাধীনতা আনা, দেশের মানুষকে মুক্তি করা। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে একটি বিপ্লবের পর আরেকটি প্রতি বিপ্লবের সূচনা করেছে। কিছু বিপথগামী সেনা-রাজনৈতিক ব্যক্তিরা চেয়েছিলো স্বাধীনতা নস্যাৎ করে দিতে।’

অর্থনীতি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক সনৎকুমার সাহা বলেন, ‘২১ আগস্ট গ্রেনেড ও ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যাকে আকস্মিক হত্যাকা- ভাবার কোনো কারণ নেই। এটা ছিলো একটা সুপরিকল্পিত প্রক্রিয়া। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা পর আমাদের প্রচুর প্রত্যাশা ছিলো কিন্তু আজ ২০১৬ সালের আমরা সেই আশাটুকুও করতে পারিনা। কারণ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বোনার পালা আজ আমরা পার হয়ে এসেছি। স্বাধীনতা নিয়ে অধ্যাপক সনৎকুমার বলেন, অনেকে বলেন ২৫ মার্চ থেকে স্বাধীনতা আন্দোলন শুরু, আসলে সেটা হলো পুরো সত্যের একটা খন্ডাংশ কেবল। মূলত ১৯৪৭ এর পর থেকেই স্বাধীনতার আকাক্সক্ষা তৈরি হয়েছিলো।

আলোচনা সভার আগে ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধুসহ নিহতদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। আলোচনা সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহান, সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আব্দুল খালেক, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সায়েন উদ্দিন আহমেদ, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মু. এন্তাজুল হক, ছাত্র উপদেষ্টা মো. মিজানুর রহমান, প্রক্টর অধ্যাপক মজিবুল হক আজাদ খান, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক মো. মশিহুর রহমানসহ প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি #

গাউছুল আজম মিল্টন শহীদ হবিবুর রহমান হল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী - ৬২০৫ ০১৭৬৩-২৩৭৭৭৬

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com