কাউখালী নৌ-পূর্বাভাস কেন্দ্র চালুর অপেক্ষায়

৮৭ বার পঠিত

সৈয়দ বশির আহম্মেদ, কাউখালী প্রতিনিধি: উপকূলীয় পিরোজপুরের অঞ্চল দুর্যোগ প্রবণ অঞ্চল । সন্ধ্যা ও গাবখান নদীবেষ্টিত কাউখালীর সঙ্গে বাইরের জেলার যোগাযোগের সহজ মাধ্যম হচ্ছে  নৌপথ। নৌরুটেই পণ্যবাহী দেশি-বিদেশি জাহাজ, কার্গো, লঞ্চসহ বিভিন্ন ধরনের নৌযান চলাচলে কাউখালী রুট ব্যবহার করা হচ্ছে। এরুটে ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, মংলা, ভারতে নিয়মিত চলাচল করে আসছে। উপকূলীয় দুর্যোগকালীন সময়ে এসব  নৌযান চরম ঝুঁকির মধ্যে পড়ে। মাঝে-মধ্যে দুর্যোগে ক্ষয়-ক্ষতির শিকার হয়। এক্ষেত্রে দুর্যোগের আগাম সতর্কবার্তা দিতে পিরোজপুর উপকূলে তেমন কোনো সক্ষম আবহাওয়া দপ্তর নেই। এ সংকট মোকাবেলায় পিরোজপুরের কাউখালীতে অত্যাধুনিক নৌ-পূর্বাভাস কেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে। কেন্দ্রটি চালু হলে এখন থেকে নৌ-সতর্কবার্তার জন্য ঢাকার ওপর নিভর করতে হবে না। এ আবহাওয়া অফিসই ঘূর্ণিঝড়ের আগাম নৌ-সতর্কতা দিতে পারবে। এরফলে দুর্যোগকালীন সময়ে নৌযান অনেকটা ঝুঁকিমুক্তভাবে চলাচল করতে পারবে।

জানাগেছে, উপকূলীয় জনপদের মানুষের কাছে দুর্যোগের আগাম সতর্কবার্তা পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে সরকার ২০০৮ সালে ১৩টি নৌ-পূর্বাভাস কেন্দ্র নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়। এরই একটি উপকূলীয় জনপদ পিরোজপুরের কাউখালীতে সন্ধ্যা নদীর তীরে লঞ্চঘাট সংলগ্ন পাইলট অফিস চত্বরে স্থাপন করা হয়। অফিস ভবনটির নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে পাঁচ বছর আগে। তবে এর আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম এখনো শুরু হয়নি। শিগগিরই  এ যাত্রা শুরু হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট অফিসের কর্মকর্তারা।

অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল পূর্বাভাস কেন্দ্রের প্রকল্প পরিচালক আবহাওয়াবিদ মজিদুল ইসলাম বলেন, নৌ-পূর্বাভাস কেন্দ্র ভবন নির্মাণকাজ  শেষ হয়েছে। ইতোমধ্যে সেখানে একজন আবহাওয়া সহকারী, একজন উচ্চ পর্যবেক্ষক ও দু’জন তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী পদায়ন দেওয়া হয়েছে। আসবাবপত্রও সরবরাহ করা হয়েছে। আগামী মাসে আধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হতে পারে তিনি জানান ।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com